পশ্চিমবঙ্গ

মন্ত্রীসভায় আর জায়গা হয়নি বাবুল সুপ্রিয়র, ফেসবুক পোস্টে রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ার ঈঙ্গিত

কলকাতা, ৩০ জুলাই – মোদীর মন্ত্রীসভার পরিবর্তনে তৃতীয়বারের জন্য আর জায়গা হয়নি বাবুল সুপ্রিয়র৷ তবে ২০১৪ থেকে ২০২১ দু’বার মোদীর মন্ত্রীসভায় জায়গা পেয়েছেন আসনসোলের এমপি এবং বিজেপির দাপুটে নেতা বাবুল সুপ্রিয়। মন্ত্রিত্ব হারানোর সঙ্গে সঙ্গেই একটি ফেসবুক পোস্টে নিজের মনখারাপের কথা জানিয়েছিলেন বাবুল। এবং এনিয়ে রাজ্যসভাপতি দিলীপ ঘোষ তাঁকে ‘বরখাস্ত করলে ভালো হত?’ বলে কড়কেও দিয়েছিলেন৷

ইদানিং বিতর্ক এড়িয়েই চলেন বাবুল!

ওই বিতর্কের পর রাজনৈতিক পোস্ট ছেড়ে ফেসবুকে নিজের গান ও টুকটাক ভালোলাগার বিষয় পোস্ট করেন বাবুল। এবং এতে তিনি বিরোধী সমর্থকদের থেকেও প্রশংসা পাচ্ছেন বলে একটি ফেসবুক পোস্টে জানান৷ একই সঙ্গে ওই পোস্টেই রাজনীতি থেকে নিজের অবসরের জল্পনা তুলে দিলেন গায়ক তথা রাজনৈতিক ব্যক্তিত বাবুল সুপ্রিয়৷

এটা কোনও রাজনৈতিক পোস্ট নয়!

বৃহস্পতিবার একটি ফেসবুক পোস্টে বাবুল লেখেন, প্রথমেই বলি যে এটি কোনো রাজনৈতিক পোস্ট নয় ! আমি লিখতে ভালোবাসি আর আপনারাই আজ আমাকে, অর্থাৎ ‘গায়ক বাবুল-‘কে এটি লিখতে অনুপ্রাণিত করছেন। বেশ কিছুদিন ধরেই আমি অত্যন্ত আনন্দের সাথে লক্ষ্য করছি যে আমার গান নিয়ে কোনো পোস্ট করলেই আপনারা অকুন্ঠ ভালোবাসা প্রকাশ করছেন। গুটি কয়েক নেগেটিভ কমেন্ট বাদ দিলে, বাকি সবই অত্যন্ত সুন্দর সব লেখা। অনেক ধন্যবাদ এর জন্য।’

নিজের হয়ে কলম ধরলেন গায়ক বাবুল

এরপর বৃহস্পতিবার করা ওই খেসবুক পোস্টে বাবুল লেখেন, ‘কখনো আনমনে বসে যখন ভাবছি তখন কোথাও যেন মনে হচ্ছে কমেন্টগুলি ‘দলমত নির্বিষেশে’ গায়ক বাবুলকে লেখা। কিছু নাম চিনতে পারছি যারা হয়তো অন্য সময়ে আমার রাজনৈতিক পোস্টগুলোতে আমাকে তীব্র আক্রমণ করেন বা কটু ভাষা লেখেন কিন্তু এখন সম্পর্ণ অন্যরকম লাগছে সেই একই মানুষগুলোর লেখা। বলছেন রাজনীতি ছেড়ে দিতে!’

এরপরই বাবুল জানান ফ্যানদের রাজনীতি ছাড়ার অনুরোধ তাঁকে গভীরভাবে ভাবাচ্ছে

বাবুল লিখেছেন, ‘কথা গুলো গভীরভাবে ভাবাচ্ছে আমাকে। রাজনীতিতে কিছু পাওয়ার আশায় বা ‘পাওয়ার’-এর আশায় তো আসিনি। তাহলে ২০১৪-এ তখন অজানা-অচেনা ‘আসানসোল’-এ লড়লাম কেন? ওই সময় জিতেছি – মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে মন্ত্রী করেছেন। ২০১৯-এ আবার জিতেছি, উনি আবার মন্ত্রী করেছেন। আজ মন্ত্রী নেই বলে ছেড়ে চলে যাওয়াটা কি ঠিক হবে??’

হার না মানা মানসিকতার কথা বললেন বাবুল!

গায়ক বাবুল লেখেন, ‘জীবনে অনেক হার দেখেছি কিন্তু মনটাকে কখনো হারতে দিইনি – হার মানতে শেখায়নি !! কঠিন সময়েও মুখে হাসি রেখেছি – হাল ছাড়িনি কখনো। হ্যাঁ, এটা ঠিক যে ২০১৮ সালে নানাকারণে completely disillusioned ও বীতশ্রদ্ধ হয়ে মন্ত্রী থাকাকালীন পদত্যাগ করেছিলাম। দল অত্যন্ত ভালোবাসার সঙ্গে তা প্রত্যাখ্যান করেছিল। সেই সময়ে নতুন করে অনুপ্রেরণা জোগানোর জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও মাননীয় অমিত শাহ-জির-কাছে আমি কৃতজ্ঞ। গান আর রাজনীতি আমার দুটো সত্তা, দুটোতেই কখনো ভালো – কখনো খারাপ ফল হবে৷ এটাই তো জীবনের নিয়ম।

ফ্যানদের কমেন্ট ভাবাচ্ছে বাবুলকে!

বাবুল আরও লেখেন, কিন্তু আজ নতুন করে আপনারাই কিন্তু আমাকে ভেতর থেকে নাড়িয়ে দিচ্ছেন৷ আমাদের ভালোবাসাকেই পাথেয় করে রাজনীতির ‘কিস্যু’ না জানা বাবুল রাজনীতিতে এসেছিলো – আপনারাই জিতিয়েছেন, অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন – আমি আমাদের মোদীজির দেখানো পথে, ওনার নির্দেশমতো কাজ করার চেষ্টা করে গেছি। খানিকটা পেরেছি, খানিকটা পারিনি কিন্তু আপনাদের টাকায় আপনাদের কাজ করেছি। এইটুকুই পাওনা যে আজও সাদা জামা পড়তে কণামাত্র ভয় করেনা !’

আমাকে বারবার ফিরে আসতে বলছেন কেন,

ফ্যানদের প্রশ্ন বাবুলের! কিন্তু আপনারা যা লিখছেন তার মর্মার্থ আমার মনে প্রাণে প্রশ্ন জাগাচ্ছে ! আপনাদের ভালোবাসাকে পাথেয় করে আপনাদেরই মধ্যে দিতে হেঁটে যেতে যেতে কোথাও আপনাদের থেকে, ‘আমার আমি’ থেকে দূরে চলে যাচ্ছি না তো? তা না হলে বার বার আপনারা ফিরে আসতে বলছেন কেন??

শেষে বাবুল আবার লিখেছেন এটি কোনও রাজনৈতিক পোস্ট নয়!

তবে, আবার বলি, এটি কিন্তু কোনো রাজনৈতিক পোস্ট নয় তাই এটুকু মনে রেখে যদি কমেন্ট করেন তাহলে খুব কৃতজ্ঞ ও বাধিত হবো

তথ্যসূত্র: ওয়ান ইন্ডিয়া বেঙ্গলি
এস সি/ ৩০ জুলাই

Back to top button