ফুটবল

বাফুফে কর্মকর্তাদের নিয়ে প্রায়ই মন্তব্য করেন ব্যারিস্টার সুমন, এই ব্যপারে যা বল্লেন সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম

ঢাকা, ১৭ জূলাই – বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) কর্মকর্তাদের নিয়ে প্রায়ই মন্তব্য করতে দেখা যায় সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনকে। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যুবলীগের আইন সম্পাদক বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের বাজে অবস্থা তুলে ধরে ফেডারেশন সভাপতি কাজী মো. সালাউদ্দিন ও সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদীর সমালোচনা করেছিলেন।

ফেসবুকে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর নামে স্টেডিয়াম, ইতিহাস ঐতিহ্যে ঘেরা। অথচ পৃথিবীর কোথাও এমন ফুটবল মাঠ আছে কিনা তা আমার জানা নাই। মনে হচ্ছে গরু হাল চাষ করছে। এদেশের ফুটবল ফেডারেশনকে আর কত নিম্ন মানের করে নিলে সালাউদ্দিন আর সালাম মুর্শেদী সাহেবরা লজ্জা পাবে! ফুটবল ফেডারেশনকে কতটা ধ্বংস করলে সালাহউদ্দিন সাহেব পদত্যাগ করবে?’

অন্যদিকে একটি বেসরকারি টেলিভিশনের টক শোতে সালাম মুর্শেদীর উপস্থিতিতে এই যুবলীগ নেতা বলেন, ফুটবলে উনি ১৬ অথবা ১২ বছরের মতো আছেন। সহ সভাপতি ও সিনিয়র সহ সভাপতি পদে। একটা জিনিস খেয়াল করে দেখেন উন্নতি তো পরে। প্রায় ২৪ বছরে আমরা ৭৭ ধাপ নিচে নেমেছি। সম্মানের সঙ্গে বলছি, উনি জাতীয় দলের খেলোয়াড় থেকে হলেন ব্যবসায়ী নেতা। ফুটবলকে ব্যবহার করে হলেন এমপি। আগামীতে মন্ত্রীও হবেন। ফুটবলকে পেয়েছেন তারা দামী শ্বশুরবাড়ী। শ্বশুরের মেয়েকে ব্যবহার করে তারা অনেক কিছু হচ্ছেন। আবার অনেক কিছু হবেন।’

কাজী সালাউদ্দিনের প্রসঙ্গ টেনে সায়েদুল হক সুমন বলেন, ১৬ বছর ধরে এতো নিচে নামার পরও তিনি কোনও দিন পদত্যাগের চিন্তাতো দূরের কথা, কখনওই বলেননি, আমরা আপাতত পারছি না।’

শনিবার (১৭ জুলাই) মতিঝিলে বাফুফে কার্যালয়ে নির্বাহী কমিটির বৈঠক বসেছিল। তারপর গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন আব্দুস সালাম মুর্শেদী।

সিনিয়র সহ-সভাপতির কাছে প্রশ্ন রাখা হয় টক শোতে আলোচনা হওয়া এসব কথা তাদের জন্য অপ্রীতিকর কি না?

জবাবে সালাম মুর্শেদী বলেন, ‘যদি কোনও শিরোনাম থাকে লঞ্চে ডুবে ১০০ লোক মারা গেছে, এটা কিন্তু সবাই আগে দেখে। আমাদের দেশের পত্রিকার নিউজই হলো নেতিবাচক যা মানুষকে আকর্ষণ করে। আমি মনে করি, যেকোনও সমালোচনা, যদি গঠনমূলক হয় প্রতিষ্ঠান হিসেবে আমরা তা গ্রহণ করবো। এবং তা নিয়ে কাজ করবো। আর কারও প্রতি যদি বিদ্বেষপরায়ণ হয়ে থাকলে আপনারা (গণমাধ্যম কর্মী) আমাদের রক্ষা করবেন।’

তথ্যসূত্র: আরটিভি
এস সি/১৭ জূলাই

Back to top button