চট্টগ্রাম

চমেক হাসপাতালে জরুরি ছাড়া রোগী ভর্তি ও অপারেশন বন্ধ

চট্টগ্রাম, ১২ জুলাই- কোভিড চিকিৎসা আরও সম্প্রসারিত করতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে সাধারণ রোগী ভর্তি ও রুটিন অপারেশন কার্যক্রম বন্ধ করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তবে জরুরি রোগী ও অপারেশন চালু রাখার কথা জানানো হয়েছে নির্দেশনায়।

হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এসএম হুমায়ুন কবীর ও উপ-পরিচালক ডা. আফতাবুল ইসলামের স্বাক্ষরিত এক নির্দেশনায় এসব জানানো হয়। যা হাসপাতালে প্রত্যেকটি ওয়ার্ড ও সংশ্লিষ্টদের জানানো হয়েছে।

নির্দেশনায় ক্রমবর্ধমান কোভিড-১৯ রোগীর ব্যবস্থাপনার জন্য যেসব নির্দেশ অনুসরণ করার জন্য বলা হয়েছে, সেগুলো হচ্ছে,

কেবলমাত্র জরুরি অপারেশন ছাড়া অনান্য রুটিন অপারেশনসমূহ স্থগিত থাকবে, কেবলমাত্র জরুরি রোগীদেরই ভর্তি করা হবে হাসপাতালে, রুটিন ভর্তি বন্ধ থাকবে। ইতোমধ্যে ভর্তি হওয়া রোগীদের মধ্যে যারা জরুরি রোগী নন এবং দীর্ঘ মেয়াদে রোগে আক্রান্ত তাদের আপাতত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাপত্র দিয়ে বাড়িতে চিকিৎসা গ্রহণের জন্য ছাড়পত্র দেয়া হবে।

ওই নির্দেশনায় সকল স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, নার্সিং কর্মকর্তাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্য কর্মীদের ডিউটিকালে মাস্ক পরিধান করা অত্যাবশ্যক বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

জানা যায়, চলমান ঊর্ধ্বমুখী কোভিড মহামারিতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে রোগীদের চাপ বেড়েছে। ইতোমধ্যে হাসপাতালের শয্যার চেয়ে রোগীর সংখ্যাও অনেক বেশি।

রোববারের তথ্যে জানা যায়, ২০৬ শয্যার বিপরীতে রোগী ভর্তি ছিল ২২৮ জন। ইতোমধ্যে রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহ নিশ্চিতে নতুন করে আরও বেশ কিছু লাইন স্থাপন করা হচ্ছে বলে জানায় সংশ্লিষ্টরা।

সোমবার এ বিষয়ে চমেক হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. আফতাবুল ইসলাম বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় চিকিৎসার পূর্ব প্রস্তুতি হিসেবে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রুটিন রোগীর চিকিৎসাসেবা সীমিত করে দেয়া হয়েছে। প্রতিদিনই রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে হাসপাতালে।

রোগী বাড়লেও হাসপাতালে বিদ্যমান ডাক্তার-নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী দিয়ে এসব রোগীদের সেবা দিতে হচ্ছে। যেহেতু করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়ছে তাই সাধারণ রোগীদের মধ্যে অতি জরুরি রোগী ছাড়া অন্য রোগী ভর্তি সীমিত করতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এছাড়া জরুরি অপারেশন ছাড়া রুটিন অপারেশনও আপাতত স্থগিত থাকবে।

সূত্রঃ বাংলাদেশ জার্নাল

আর আই

Back to top button