ফুটবল

রামোসের গন্তব্য কোথায়?

দীর্ঘ ১৬ বছরের সম্পর্ক ভেঙে রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে চলে যাচ্ছেন সের্হিও রামোস। ক্লাবের সফলতম এই অধিনায়ককে সম্মানের সাথে বিদায় দিতে মঞ্চ প্রস্তুত করেছে লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। তবে রিয়াল ছাড়লেও নতুন ক্লাব হিসেবে কোথায় যাচ্ছেন তা এখনো জানাননি স্প্যানিশ এই ডিফেন্ডার। যদিও ফুটবলভিত্তিক গণমাধ্যমগুলোতে রামোসের নতুন ঠিকানা কোথায় হতে পারে, তা নিয়ে জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই।

২০০৫ সালে সেভিয়া থেকে ১৯ বছর বয়সী রামোসকে দলে ভিড়ায় রিয়াল মাদ্রিদ। এরপর আর কোথায় যোগ দেননি তিনি। টানা ১৬ বছর মাদ্রিদের ক্লাবটিতে ক্যারিয়ারের স্বর্ণ যুগ কাটিয়েছেন তিনি। রামোসই একমাত্র অধিনায়ক যিনি কিনা টানা তিনবারসহ মোট চারবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতার রেকর্ড গড়েন। এছাড়াও এই সময়ে পাঁচবার লা লিগার শিরোপা জেতান দলকে।

সম্প্রতি সময় ক্লাবের সঙ্গে আর্থিক সমস্যার কারণে চুক্তি আর নবায়ন করেননি রামোস। এ ছাড়াও গেল মৌসুমের অর্ধেক সময়ে ছিলেন মাঠের বাইরে। ইনজুরি থাকায় দলকে খুব একটা সার্ভিস দিতে পারেননি তিনি। পুরো মৌসুমে কোনো শিরোপাও জেতা হয়নি রিয়ালের। এত কিছুর পর রিয়ালের সঙ্গে ক্যারিয়ার আর লম্বা করছেন না তিনি।

নতুন ক্লাব হিসেবে কোথায় যেতে পারেন রামোস? এমন প্রশ্নে শুরুতেই নাম আসে ফরাসি জায়ান্ট পিএসজির নাম। বেশ কয়েকবার ক্লাবটিতে রামোসের যোগদানের গুঞ্জন শোনা যায়। ইউরোপ সেরা হওয়ার জন্য যেকোনো প্লেয়ারকেই কিনতে প্রস্তুত তারা। এছাড়াও গত বছর অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার সিলভা চলে যাওয়ায় তার জায়গাটি পূরণ করতে মরিয়া তারা।

রামোসের নতুন ঠিকানা হতে পারে ইতালিও। সিরি আ’র ক্লাব জুভেন্টাস রামোসকে কিনতে আগ্রহী বলেও গুঞ্জন ছিল বেশ। জুভেন্টাসের হয়ে খেলছেন তারই সাবেক সতীর্থ ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। ফলে ইতালিতেও রামোসের যাওয়া নিয়ে গুঞ্জন আছে। আবার এই তারকা ফরোয়ার্ডকে কিনতে আগ্রহী ছিল ম্যানচেস্টার সিটি। যার কারণে গার্দিওলার দলেও যেতে পারেন তিনি।

বয়স এখন ৩৫, সর্বোচ্চ দুই থেকে তিন মৌসুম দম নিয়ে খেলতে পারবেন তিনি। এরপর আর খুব একটা সার্ভিস দিতে পারবেন না তিনি। যার কারণে সাবেক ক্লাব সেভিয়াতেও ফেরার সম্ভাবনা আছে তার। স্পেনের সেভিয়া অঞ্চলে জন্ম নেওয়া রামোস সেভিয়াতে খেলেছিলেন। বর্তমানে সেখানে তার স্ত্রী থাকেন, ফলে স্ত্রীর কাছেও যেতে পারেন তিনি।

সূত্র : আমাদের সময়
এন এইচ, ১৭ জুন

Back to top button