ঢালিউড

সেই রাতে পরীমনির সঙ্গে যা ঘটেছিল

ঢাকা, ১৪ জুন – ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার সময় ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ তার শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে স্পর্শ করেছে বলে অভিযোগ করেছেন চিত্র নায়িকা পরীমণি।

সোমবার সাভার মডেল থানায় নাসিরসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার মামলা করেন নায়িকা; ওই মামলার এজাহারেই এ অভিযোগ করেন তিনি।

ঘটনাস্থল ঢাকা বোট ক্লাবে কী ঘটেছিল তার বর্ণনা দিয়ে মামলার এজাহারে পরীমণি লিখেছেন, এক নম্বর আসামি নাসির উদ্দিন মাহমুদ আমাদের ডেকে বারের ভেতরে বসার অনুরোধ করেন এবং কফি খাওয়ার প্রস্তাব দেন। আমরা বিষয়টি এড়িয়ে যেতে চাইলে আসামি মদ্যপান করার জন্য জোর করেন।

এজাহারে তিনি আরও লিখেছেন, মদ্যপান করতে না চাইলে নাসির জোর করে আমার মুখের মধ্যে মদের বোতল ঢুকিয়ে মদ খাওয়ানোর চেষ্টা করেন। এতে আমি সামনের দাঁত ও ঠোঁটে আঘাত পাই। নাসির আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। আমার শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে স্পর্শ করে এবং আমাকে জোর করে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। আমার সঙ্গীদের সহায়তায় ধর্ষকের হাত থেকে রক্ষা পাই।

পরীমণি এজাহারে বলেছেন, ১ নম্বর আসামি উত্তেজিত হয়ে টেবিলে রাখা গ্লাস ও মদের বোতল ভাঙচুর করে আমার গায়ে ছুড়ে মারেন। তখন আমার কস্টিউম ডিজাইনার জিমি ১ নম্বর আসামিকে বাধা দিতে চাইলে তাকেও মারধর করেন। এ সময় আমি ৯৯৯–এ কল করতে গেলে আমার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি টান মেরে ফেলে দেওয়া হয়। ২ নম্বর আসামিসহ অজ্ঞাতনামা চারজন ১ নম্বর আসামিকে ঘটনা ঘটাতে সহায়তা করেন।

এর আগে রোববার রাতে সংবাদ সম্মেলনে এবং সন্ধ্যায় ফেসবুক পেজে পোস্টে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ তুলে প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চান ঢাকাই ছবির আলোচিত এই নায়িকা।

এন এইচ, ১৪ জুন

Back to top button