নোয়াখালী

হামলার অভিযোগ প্রসঙ্গে যা বললেন কাদের মির্জা

ঢাকা, ১৩ জুন – নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার নেতৃত্বে প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের (৫০) ওপর হামলার অভিযোগ উঠেছে।

তবে এসব ভিত্তিহীন জানিয়ে কাদের মির্জা বলেছেন, আমার নেতৃত্বে মিজানুর রহমান বাদলের ওপর কোনো হামলা হয়নি। গণমাধ্যম কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেউ বিভ্রান্তিকর ভুল তথ্য দিয়ে প্রচারণা না করার আহ্বান জানাচ্ছি।

শনিবার রাত ৮টায় নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে দেয়া স্ট্যাটাসে এসব কথা জানান তিনি। কাদের মির্জা লিখেন, ‌‘আসসালামু আলাইকুম।

প্রিয় কোম্পানীগঞ্জবাসী, আজ ১২ জুন সকাল ৯টা পরবর্তী সময়ে বসুরহাট বাজারে মিজানুর রহমান বাদল তার ব্যক্তিগত শত্রুতার জেরে একটি হামলার শিকার হয়। ইতোমধ্যে বিভিন্ন মাধ্যমে আমি জানতে পারি অনেক মাধ্যম আমার নেতৃত্বে বা আমার লোকজন হামলা করেছে বলে প্রচার করতেছে।

সকলের অবগতির জন্য জানাচ্ছি, মিজানুর রহমান যখন হামলার শিকার হয় (সকাল, ৯টা পরবর্তী) তখন আমি আমার পৌরসভা অফিসে আমার দাপ্তরিক কাজ করছিলাম। হামলার অনেকক্ষণ পরে খবর পাই মিজানুর রহমান বাদলের উপর ক্ষুব্ধ কিছু লোকজন হামলা করেছে।

আমার নেতৃত্বে মিজানুর রহমান বাদলের ওপর কোনো হামলা হয়নি। সুতরাং গণমাধ্যম কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেউ বিভ্রান্তিকর ভুল তথ্য দিয়ে প্রচারণা না করার আহবান জানাচ্ছি।

আবদুল কাদের মির্জা

মেয়র,
বসুরহাট পৌরসভা।’

এদিকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল ও সাবেক ছাত্রনেতা হাসিব আহসান আলালের ওপর হামলার প্রতিবাদে ৪৮ ঘণ্টার হরতালের ডাক দিয়েছেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশীদ মঞ্জু।

এরআগে সকাল সাড়ে ৮টায় বসুরহাট বাজারের প্রধান সড়কের ইসলামী ব্যাংকের সামনে মিজানুর রহমান বাদলের ওপর হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

প্রসঙ্গত, গত পাঁচ মাস কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের দ্বন্দ্বে এলাকায় অস্থিতিশীল পরিবেশ বিরাজ করছে। এ দুই গ্রুপের সংঘর্ষ ইতোমধ্যে একজন সাংবাদিকসহ দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন আরও শতাধিক।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এন এইচ, ১৩ জুন

Back to top button