আফ্রিকা

নতুন মন্ত্রিসভা ঘোষণা মালির অভ্যুত্থানের প্রধান

বামাকো, ১২ জুন – মালিতে নয় মাসের মধ্যে দ্বিতীয় অভ্যূত্থানের কয়েক সপ্তাহর মধ্যেই নতুন মন্ত্রিসভার ঘোষণা দিয়েছেন কর্ণেল আসিমি গোইতা। এই মন্ত্রিসভায় প্রতিরক্ষা, নিরাপত্তা ও জাতীয় পুনঃএকত্রীকরণ মন্ত্রণায়ের মতো কৌশলগত দপ্তরে সামরিক কর্মকর্তাদের নাম ঘোষণা করেছেন। কর্নেল সাদিও কামারাকে পুনরায় প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। শুক্রবার জাতীয় টেলিভিশনে এই ঘোষণা দেয়া হয়। এ খবর দিয়েছে কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম ।

২০২০ সালের আগস্টে প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম বৌবাকার কেইটার বিরুদ্ধে অভ্যূত্থানে নেতৃত্ব দেয়া সেনা কর্মকর্তাদের অন্যতম ছিলেন কর্নেল সাদিও। প্রেসিডেন্ট কেইটাকে প্রত্যাহার করার পর অন্তর্বতীকালীন সরকারের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতা গ্রহণ করেন আসিমি গোইতা। মে মাসে আরেক অভ্যূন্থানের মাধ্যমে অন্তর্বতী প্রেসিডেন্ট বাহ এনদাও ও প্রধানমন্ত্রী মোক্তার উয়ানকে অপসারণ করা হয়।

গোইতা কর্তৃক ঘোষিত নতুন মন্ত্রিসভায় মোদিবো কোনিকে অন্তর্ভূক্ত করা হয়নি। নিরাপত্তা বিষয়ক মন্ত্রী হিসেবে কর্ণেল দাউদ আলী মোহাম্মাদিকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

এ দিকে মোদিবো কোনি নামে একজনকে পরিবেশ বিষয়ক মন্ত্রী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। কেইটার বিরুদ্ধে বিক্ষোভে নেতৃত্বদানকারী জোট এম৫ আরএফপি। এই জোটের একজন মুখপাত্র যিনি সাবেক প্রেসিডেন্ট কেইটার বিরুদ্ধে অভ্যূত্থানের সময় অগ্রণী ভূমিকা রেখেছিলেন। তিনি বলেন, তিনি একজন বেসামরিক লোক এবং তার সাথে কর্ণেলের কোন সম্পর্ক নাই। আসিমি গোইতা পূর্বে অন্তর্বতীকালীন সরকারের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতা গ্রহণ করেন। কিন্তু সোমবারে তিনি প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেন। চংগুয়েল কোকালা মাইগা বলেন, আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে নির্বাচন আয়োজনের পরিকল্পনা রয়েছে।

মালিতে গত মাসের অভ্যূত্থানের ঘটনায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে হৈ চৈ পড়ে যায়। কেইটাকে ক্ষমতাচুত্য করার পর গত বছর ১৫ দেশের জোট ইকোনমিক কমিউনিটি অব ওয়েস্ট আফ্রিকা (ইকোওয়াস) মালির ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়। দেশটিতে মোতায়েন রয়েছে ফ্রান্সের কয়েক হাজার সেনা। এই পরিস্থিতিতে ফ্রান্স দেশটির সঙ্গে থাকা এই সামরিক সহযোগিতা বাতিল করেছে। পশ্চিম আফ্রিকার সাহেল অঞ্চলে সশস্ত্র বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করছিল ফ্রান্সের ৫,১০০ সৈন্য। বৃহস্পতিবার সেই সংখ্যাকে কমিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রন।

প্রতিবেদক নিকোলাস হক, মালি ইস্যুতে প্রথম থেকেই রিপোর্ট করছেন। তিনি বলেন, মন্ত্রীসভায় যাদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে তাদের মধ্যে অনেকেই সুপরিচিত। তারা সরকারি সামরিক বাহিনীর সদস্য। তিনি আরো বলেন, ১৫ দেশের জোট ইকোনমিক কমিউনিটি অব ওয়েস্ট আফ্রিকা (ইকোওয়াস) আসিমি গোইতাকে জাতীয় ঐক্যের সরকার গঠনের আহ্বান জানিয়েছিল। এতে দেখা যাচ্ছে তারা যে সরকার ঘোষণা দিয়েছে তা জাতীয় ঐক্যের সরকার। নিকোলাস হক বলেন, ঘোষিত এ মন্ত্রিসভায় এম৫-আরএফপি জোট, কেইতার সাবেক ক্ষমতাশীল দল ও সামরিক জান্তার সদস্যরা রয়েছেন। হক বলেন, আব্দুলায়ে দিয়োপ মন্ত্রিসভার একজন নতুন মুখ। যিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করবেন। আন্তর্জাতিক অ্যাক্টরদের সঙ্গে পুনরায় সম্পর্ক তৈরি করা তার জন্য কঠিন কাজ হবে। লক্ষণীয়ভাবে যেখানে ইকোওয়াস মালির ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল। কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হবে ফ্রান্সের সাথে সম্পর্ক পুনরায় প্রতিষ্ঠা করা।

সূত্র : বার্তা২৪
এন এইচ, ১২ জুন

Back to top button