ক্রিকেট

৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা ১৮ মাস কাটিয়ে ফিরলেন শাহাদাত রাজিব

ঢাকা, ০৫ জুন – ৫ বছরের বিসিবির নিষেধাজ্ঞা ১৮ মাস কাটিয়ে ফিরলেন মাঠে ফিরলেন বাংলাদেশের সাবেক পেসার শাহাদাত হোসেন রাজীব। এবারের ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে পারটেক্স স্পোর্টিং ক্লাবের হয়ে খেলতে নামলেন এই পেসার।

বিসিবি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ৫ বছরের জন্য। বাংলাদেশের সাবেক পেসার শাহাদাত হোসেন রাজীব মাঝে মানবিক কারণ দেখিয়ে সেই নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ কমিয়ে আনার আবেদন করেছিলো। বিসিবিও মৌখিকভাবে তার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের কথা জানিয়েছিল; কিন্তু কোনো অফিসিয়াল বক্তব্য দেয়নি এ ব্যপারে।

শনিবার (৫ জুন) ওল্ডডিওএইচএসের বিপক্ষে খেলতে সামনে শাহাদাত হোসেন রাজীব। খেলতে নেমে ২ ওভার বোলিং করে ১৬ রান দিলেও কোনো উইকেট পাননি। উল্টো ওল্ডডিওএইচএসের কাছে হেরেছে রাজীবের দল পারটেক্স।

২০১৯ সালে খুলনায় প্রথম শ্রেণির ম্যাচ চলাকালে বল ঘসে না দেয়ার অপরাধে সতীর্থ আরাফাত সানি জুনিয়রের গালে চড় মারেন শাহাদাত রাজিব। এরপরই তাকে তুলে আনা হয় ম্যাচ থেকে এবং পরে ডিসিপ্লিনারি কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আচরণবিধি লেভেল-৪ এ অভিযুক্ত করে ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞার শাস্তি ঘোষণা করা হয়। সঙ্গে ১ লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়। যার মধ্যে আবার ২ বছরের নিষেধাজ্ঞা মওকুফ করে দেয়া হয়।

তবে, গত ফেব্রুয়ারিতে ক্যান্সার আক্রান্ত মায়ের চিকিৎসার কথা জানিয়ে ক্রিকেটে ফিরতে চান বলে আবেদন করেন রাজীব। তিনি বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খানের সঙ্গে কথা বলেন।

রাজিব বলেছিলেন, আমি আমার অপরাধের জন্য অনুতপ্ত। আমিই ভুল ছিলাম। এরপর চেষ্টা করবো, আর কখনো এমন না করতে। আমি চাই না, ক্যারিয়ারের বাকি সময়ে কোনো সমস্যায় পড়ি। আমার মা একজন ক্যান্সারের রোগি। আমি আমার মায়ের জন্য ক্রিকেটে ফিরতে চাই, যাতে মায়ের চিকিৎসায় খরচজ যোগাতে পারি।

এরপরই আকরাম খান জানিয়ে দেন, তিনি এ বিষয়টা বিসিবির উচ্চ পর্যায়ে তুলবেন। মিডিয়াকে তখন তিনি বলেছিলেন, তার পরিবারে অনেক সমস্যা। তার মা ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করছে। এখন সে ক্রিকেট খেলতে পারছে না। এ কারণে আমাকে কল করেছিলো। আমি কয়েকজন ডিরেক্টরের সঙ্গেও কথা বলেছি। বিসিবির ডিসিপ্লিনারি কমিটির কাছেও মানবিক বিবেচনায় বিষয়টা তুলবো। এমনকি বোর্ড প্রেসিডেন্টকেও জানাবো। তিনি এ বিষয়ে খুব পজিটিভ এবং ইনশাআল্লাহ আশা করি সে (রাজিব) খুব দ্রুতই ফিরে আসবে।

সূত্র : পূর্বপশ্চিমবিডি
এন এইচ, ০৫ জুন

Back to top button