জাতীয়

ফাঁস হওয়া অডিও ক্লিপে যে নির্দেশনা দিয়েছিলেন নিপুণ

ঢাকা, ২৮ মার্চ – রাজধানীতে গাড়ি পোড়ানোর নির্দেশনা দেয়ায় বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ বিএনপির সভাপতি নিপুণ রায় চৌধুরীকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। রোববার বিকেল ৩টা ৫৫ মিনিটে রাজধানীর রায়েরবাজার এলাকার বাসা থেকে তাকে আটক করা হয়।

এদিকে আরমান নামে এক কর্মীকে হরতালের আগের রাতে (২৭ মার্চ) আগুন দেয়ার বিষয়ে ফোনে নির্দেশনা দেন নিপুণ রায়- এমন একটি অডিও কল রেকর্ড ফাঁস হয়েছে। তবে ওই কল রেকর্ডটি নিপুণ রায় ও আরমানের মধ্যকার কিনা তা তাৎক্ষণিক যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

ফাঁস হওয়া কল রেকর্ডটি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো

কলিং…

আরমান: ও দিদি?

নিপুণ রায়: আরমান ভাই, এলাকাতেই তো আছেন তাই না? কালকে তো হরতাল, একটা কিছু করা যাবে না?

আরমান: কী করতে হবে বলেন?

নিপুণ রায়: ধরায় দেন।

আরমান: ওকে ঠিক আছে।

নিপুণ রায়: শোনেন,

আরমান: হুম

নিপুণ রায়: বাস হোক যেটাই হোক, একদম পুরা, ফুল ধরবে, ফুল ধরবে। একটু দূর থেকে ভিডিও ছবি আমারে পাঠাবেন, অবশ্যই, অবশ্যই। ঠিক আছে…আমি কিন্তু জায়গা মতো পাঠাবো। হ্যাঁ, ওইটা মাথায় রাখবেন। ঠিক আছে, আজকেই আজকেই।

আরমান: ওকে।

নিপুণ রায়: বের হন।

আরমান: ইনশাল্লাহ।

নিপুণ রায়: এটা আমি চাই। একদম দাউ দাউ।

এরপর পরবর্তীতে আরেকটি ফোন কলে শোনা যাচ্ছে। আরমান ফোন করে নিপুণ রায়কে বলেন,

আরমান: ভিডিও করতে পারিনি। ছবি পাঠিয়েছি। লীগের লোকজন ঘেরা। পুলিশ ঘিরে রেখেছে।

নিপুণ রায়: ওকে সরে দাঁড়ান।

আরমান: সরে গেছি গা।

নিপুণ রায়: হোয়াটস অ্যাপে পাঠান।

আরমান: হুম, হোয়াটসঅ্যাপেই পাঠাইছি।

প্রসঙ্গত, গতকাল (২৭ মার্চ) রাত পৌনে ৮টার দিকে রাজধানীর সায়েদাবাদ জনপদ মোড়ে একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। যাত্রীরা তাড়াতাড়ি নামতে গিয়ে আহত হলেও কোনো হতাহত হয়নি। পুলিশের ধারণা, নিপুণ রায়ের এ নির্দেশনার পরই মূলত বাসে আগুন দেয়া হয়েছে। এরই মধ্যে নির্দেশনা পালনকারী আরমান খোরশেদ ও শাহীনকে কেরানীগঞ্জ থেকে আটক করা হয়েছে।

র‌্যাব সূত্র জানিয়েছে, কথোপকথনের অডিওটি ছড়িয়ে পড়ার পর র‌্যাব সদর দপ্তরে গোয়েন্দা টিম নিপুণ রায়সহ নির্দেশনা পালনকারী আরমান, খোরশেদ, শাহীনকে আটক করা হয়েছে।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এন এ/ ২৮ মার্চ

Back to top button