জাতীয়

লক্ষীপুর-২ আসনের উপ-নির্বাচনে প্রার্থী দেবে না বিএনপি

ঢাকা, ১৫ মার্চ – লক্ষীপুর-২ আসনের উপ-নির্বাচনে অংশ নিবে না বিএনপি। রোববার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে দলটির স্থায়ী কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। সন্ধ্যায় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, লক্ষীপুর-২ আসনে জাতীয় সংসদের উপ-নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী না দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। যেহেতু নির্বাচন কমিশন সকল প্রকার নির্বাচন পরিচালনায় অযোগ্যতার পরিচয় দিয়েছে এবং সরকার নির্লজ্জ্বভাবে সকল নির্বাচনগুলিতে বেআইনী হস্তক্ষেপ করছে, সেহেতু বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল আপাতত: এই সকল নির্বাচনগুলিতে অংশগ্রহণ থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

ভার্চুয়াল এই বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। সভায় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যরিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, বাবু গয়েশ^র চন্দ্র রায়, ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

আরও পড়ুন : দেশে টিকাগ্রহীতার সংখ্যা প্রায় ৪৪ লাখ, পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ৮৮৯ জনের

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, সভায় শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান এবং ৭১’এর ২৫ ও ২৬ মার্চ-এর ঘটনা প্রবাহ সম্পর্কে সরকার প্রধানের বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির নির্লজ্জ ও ষড়যন্ত্রমূলক অপপ্রয়াসের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়। বলা হয়, আওয়ামী লীগ পরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিকৃত করে পরবর্তী প্রজন্মকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। জিয়াউর রহমান বীর উত্তমের বিরুদ্ধে ক্রমাগতভাবে মিথ্যাচার ও তার চরিত্র হণনের অপ্রচেষ্টা চালাচ্ছে।

এছাড়াও স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে সম্পৃক্ত সকল জাতীয় নেতৃবৃন্দের অবদানকে অস্বীকার করছে। ইতোমধ্যে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিলের প্রস্তাব করেছে। এসকল পদক্ষেপে নেয়া হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাসকে বিকৃত করে নতুন প্রজন্মকে বিভান্ত করার জন্য। সভা এই ধরনের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে প্রকৃত ইতিহাস জনগণ এবং ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার জন্য প্রয়োজনীয় সকল প্রদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। সভায় দলের সকল স্তরের নেতা ও কর্মীদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

এছাড়া স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যরিস্টার মওদুদ আহমেদ সিঙ্গাপুরে অত্যান্ত সংকটাপন্ন অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন সভায় তার আশু রোগ মুক্তি কামনা করা হয়। স্থায়ী কমিটির আরেক জন সদস্য বেগম সেলিমা রহমান করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তার রোগ মুক্তি কামনা করা হয়।

উল্লেখ্য, কুয়েতের আদালতে নৈতিক স্খলনজনিত ফৌজদারি অপরাধে দ-িত হওয়ায় লক্ষ্মীপুর-২ আসনের এমপি কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের সংসদ সদস্য পদ বাতিল করা হয়। এর পর এই আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হয়। আগামী ১১ই এপ্রিল এ আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

সূত্র : প্রতিদিনের সংবাদ
এন এইচ, ১৫ মার্চ

Back to top button