ফুটবল

নতুন মাইলফলক গড়ে ম্যানইউর টানা চতুর্থ জয়

শেফিল্ড ইউনাইটেডের কাছে হারের পর আর্সেনালের সঙ্গে গোলশূন্য ড্রয়ে শিরোপার দৌড় থেকে খানিকটা পিছিয়ে পড়েছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। তারা ফিরলো জয়ে, সাউদাম্পটনকে নিয়ে ছেলেখেলা করলো উলা গুনার সুলশারের শিষ্যরা। মঙ্গলবার রাতে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ৯ জনের প্রতিপক্ষের জালে ৯ বার বল জড়িয়েছে ইউনাইটেড। প্রিমিয়ার লিগের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় জয়ের যৌথ রেকর্ড গড়েছে তারা ৯-০ গোলে জিতে।

সমান সংখ্যক গোলে ম্যানইউ ১৯৯৫ সালে ইপসউইচকে হারিয়েছিল। দুই বছর আগে একই স্কোরে হারের লজ্জা পেয়েছিল সাউদাম্পটন, তাদের উড়িয়ে দিয়েছিল লেস্টার সিটি।

আরেকটি শোচনীয় পরাজয়ের পথে শুরুতেই ধাক্কা খায় সাউদাম্পটন। অতিথিরা ম্যাচের প্রায় পুরো সময় ১০ জন নিয়ে খেলেছে। ম্যাচ শুরু হওয়ার ৮২ সেকেন্ডে স্কট ম্যাকটোমিনেকে ফাউল করে সরাসরি লাল কার্ড দেখেন প্রথমবার একাদশে সুযোগ পাওয়া সাউদাম্পটনের আলেক্সান্দ্রে জ্যাংকেউইজ।

আরও পড়ুন : দর্শকপূর্ণ মাঠেই হবে ২০২২ বিশ্বকাপ: ফিফা সভাপতি

১৮ মিনিটে লুক শর ক্রস থেকে অ্যারন ভ্যান-বিসাকা এগিয়ে দেন ম্যানইউকে। ম্যাসন গ্রিনউডের অ্যাসিস্টে ২৫ মিনিটে সেইন্টস কিপার অ্যালেক্স ম্যাকক্যার্থিকে পরাস্ত করেন মার্কাস র‌্যাশফোর্ড। তাদের তৃতীয় গোলটি উপহার দিয়েছে সাউদাম্পটন। র‌্যাশফোর্ডের ক্রস ঠেকাতে গিয়ে ৩৪তম মিনিটে নিজেদের জালে বল জড়ান জ্যান বেডনারেক।

বিরতির আগে এদিনসন কাভানি আরেকটি গোল যোগ করলে ৪-০ গোলের লিড নিয়ে ড্রেসিংরুমে যায় ম্যানইউ। বিরতির পর উরুগুয়ান স্ট্রাইকারের বদলি নামা অ্যান্থনি মার্শাল খুব কাছ থেকে ৬৯ মিনিটে পঞ্চম গোল করেন। রাতের ষষ্ঠ গোলটি করেন ম্যাকটোমিনে।

বেডনারেক সাউদাম্পটনের রাত আরও শোচনীয় করে তোলেন। বক্সের মধ্যে মার্শালকে ফাউল করে লাল কার্ড দেখেন এই ডিফেন্ডার। পেনাল্টি থেকে গোল করেন ব্রুনো ফের্নান্দেস। সাউদাম্পটনের কফিনে শেষ দুটি পেরেক ঠুকে দেন মার্শাল ও ড্যানিয়েল জেমস।

শীর্ষে থাকা ম্যানসিটির সমান ৪৪ পয়েন্ট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে ২২ ম্যাচ খেলা ম্যানইউ। দুটি ম্যাচ কম খেলে গোলব্যবধানে এগিয়ে থেকে তাদের উপরে পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা।

সূত্র : রাইজিংবিডি
এন এইচ, ০৩ ফেব্রুয়ারি

Back to top button