সাতক্ষীরা

ভোটে পাস করিয়ে দেওয়ার নামে প্রার্থীর থেকে ৫ লাখ টাকা নিলেন যুবলীগ নেতা

সাতক্ষীরা, ০২ ফেব্রুয়ারি – সাতক্ষীরার কলারোয়া পৌরসভা নির্বাচনে এক কাউন্সিলর প্রার্থীকে ভোট কেটে জয়যুক্ত করার নাম করে পাঁচ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন যুবলীগ নেতা। টাকা হাতিয়ে নেওয়া ওই নেতার নাম কাজী আসাদুজ্জামান সাহাজাদা। তিনি উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান কলারোয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান। পরে টাকা ফেরত পেতে ওই নারী রোববার (৩১ জানুয়ারি) কলারোয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

কলারোয়া উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের শেখ আক্তারুজ্জামানের স্ত্রী হাছিনা আক্তার ময়না জানান, তিনি পৌরসভার ৭, ৮, ৯নং ওয়ার্ড থেকে জবাফুল প্রতীক নিয়ে সংরক্ষতি মহিলা কাউন্সিলর পদ প্রার্থী হিসেবে ৩০ জানুয়ারি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। নির্বাচনের আগের দিন ২৯ জানুয়ারি রাত দেড়টার দিকে কলারোয়া উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান তুলসীডাঙ্গা গ্রামের সোনা কাজীর ছেলে কাজী আসাদুজ্জামান শাহাজাদা তার বাড়িতে যান। জেলা পুলিশের দুজন কর্মকর্তাকে দিয়ে ভোট কেটে জবা ফুল মার্কা জয়লাভ করাতে পাঁচ লাখ টাকা দাবি করলে তিনি তাৎক্ষণিক ওই টাকা দিয়ে দেন। একইভাবে আরো কয়েকজন প্রার্থীর কাছ থেকে সাহাজাদা টাকা নিয়েছেন বলে তিনি অভিযোগ করেন।

আরও পড়ুন : বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও আঘাত হানছে আর্সেনিক

হাছিনা আক্তার অভিযোগ করে বলেন, ভোট গণনা শেষে তার নাম বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা না হওয়ার কারণ জানতে চাইলে শাহাজাদা এড়িয়ে যান। রোববার দুপুর দেড়টার দিকে কলারোয়া বাজারের শাপলা সিনেমা হলের সামনে কাজী শাহাজাদাকে পেয়ে তার ছেলে শেখ মাসুমুজ্জামান ও শেখ নাজিমুজ্জামান উক্ত টাকা ফেরত চান। এ সময় কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে কাজী শাহাজাদা ক্ষিপ্ত হয়ে শেখ নাজিমুজ্জামানকে ধরে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে জখম করে। এ সময় পার্শ্ববর্তী লোকজন ছুটে এলে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে চলে যান শাহাজাদা।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কলারোয়া উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি কাজী আসাদুজ্জামান শাহজাদা কোনো মন্তব্য না করেই ফোন কেটে দেন।

কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খায়রুল ইসলাম বলেন, হাছিনা আক্তার ময়নার অভিযোগটি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সূত্র : নতুন সময়
এন এ/ ০২ ফেব্রুয়ারি

Back to top button