আইন-আদালত

রেনুকে পিটিয়ে হত্যা, বিচারের জন্য বদলির নির্দেশ

ঢাকা, ০১ ফেব্রুয়ারি – রাজধানীর উত্তর বাড্ডায় ছেলেধরা সন্দেহে তাসলিমা বেগম রেনুকে পিটিয়ে হত্যা মামলা বিচারের জন্য বদলির নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। আজ সোমবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশীদ এই আদেশ দেন।

আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) মাজহারুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, গত বছরের ২ ডিসেম্বর ১৫ জনের বিরুদ্ধে পুলিশের দাখিল করা অভিযোগপত্র গ্রহণ করেন আদালত। এর আগে গত বছরের ১০ সেপ্টেম্বর রাত পৌনে ৮টায় ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে রেনু হত্যা মামলায় ১৫ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) মতিঝিল বিভাগের অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও মাদক নিয়ন্ত্রণ টিম।

আরও পড়ুন : সাবরিনার দুই এনআইডি করার অভিযোগে মামলার প্রতিবেদন ৩ মার্চ

অভিযোগপত্রের ১৫ আসামি হলেন মো. ইব্রাহিম ওরফে হৃদয় হোসেন মোল্লা (২০), রিয়া বেগম ওরফে ময়না বেগম (২৯), মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ ওরফে আজাদ মণ্ডল (৫০), মোহাম্মদ কামাল হোসেন (৪০), মোহাম্মদ শাহিন (৩২), মো. বাচ্চু মিয়া (৩৬), মো. বাপ্পী ওরফে শহিদুল ইসলাম (২১), মো. মুরাদ মিয়া (২৬), মো. সোহেল রানা (৩০), আসাদুল ইসলাম (২২), মো. বিল্লাল মোল্লা (৩২), মো. রাজু ওরফে রুম্মান হোসেন (২৩), মো. মহিউদ্দিন (১৮), মো. জাফর হোসেন পাটোয়ারী (১৭) ও ওয়াসিম ওরফে মো. অসীম আহম্মদ (১৪)। এর মধ্যে আসামি মো. মহিউদ্দিন পলাতক রয়েছেন। বাকি ১৪ আসামি কারাগারে। আসামি মহিউদ্দিন পলাতক থাকায় তাঁর বিরুদ্ধে আজ গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ২০১৯ সালের ২০ জুলাই সকালে উত্তর-পূর্ব বাড্ডার বাড্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছেলেধরা সন্দেহে রেনুকে পিটিয়ে হত্যা করেন স্থানীয়রা। স্কুলটিতে নিজের চার বছর বয়সী মেয়েকে ভর্তি করানোর জন্য তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়েছিলেন রেনু।

এ সময় স্কুলের গেটে রেনুর পরিচয় জানতে চান সেখানে অবস্থান করা কয়েকজন অভিভাবক। পরে তাঁকে প্রধান শিক্ষিকার কক্ষে নিয়ে গেলে কে বা কারা এলাকায় গুজব ছড়িয়ে দেয়, স্কুলে একজন ছেলেধরাকে আটক করা হয়েছে। এরপর স্থানীয় কয়েকশ মানুষ স্কুলের গেট ভেঙে রেনুকে প্রধান শিক্ষিকার কক্ষ থেকে টেনেহিঁচড়ে বের করে পেটাতে শুরু করে। পুলিশ রেনুকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত রেনুর বাড়ি লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলায়। রাজধানীর মহাখালীতে চার বছরের মেয়ে ও মাকে নিয়ে থাকতেন তিনি। দুই বছর আগে স্বামীর সঙ্গে তাঁর বিচ্ছেদ হয়। তাঁর ১১ বছরের একটি ছেলেও রয়েছে। ছেলেটি বাড্ডায় বাবার সঙ্গে থাকত।

এ ঘটনায় রেনুর ভাগ্নে নাসির উদ্দিন বাদী হয়ে বাড্ডা থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলার পরে প্রধান আসামি হৃদয়, বাচ্চু, মো. বাপ্পী, মো. শাহীন, রিয়া খাতুনসহ ১৪ আসামিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

সূত্র : এনটিভি
এন এইচ, ০১ ফেব্রুয়ারি

Back to top button