ঝিনাইদহ

ভোটকেন্দ্রে সংঘর্ষে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আহত, পুলিশের গুলি

ঝিনাইদহ, ৩০ জানুয়ারি – ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু পৌরসভায় ভোটগ্রহণের সময় মান্দারতলা ভোটকেন্দ্রে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অন্ততপক্ষে পাঁচ রাউন্ড গুলিবর্ষণ করেছে।

এছাড়া এ ঘটনার স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা সাগর গুরুতর আহত হয়েছেন।

শনিবার বেলা ১১টার দিকে হরিনাকুন্ডু পৌরসভার জোড়া পুকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

এই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার আল আমিন জানান, বেলা ১১টার দিকে বেশ কিছু দুর্বৃত্ত লাঠিসোঁটা নিয়ে ভোটকেন্দ্রের একটি কক্ষে ঢুকে পড়ে।

আরও পড়ুন : ভোটের আগেই উপজেলা চেয়ারম্যান গায়েব!

এ সময় তারা দুটি ব্যালট বাক্স ভাঙচুর করে ও কিছু ব্যালট নিয়ে যায়। বুথে উপস্থিত নৌকা প্রতীকের একজন এজেন্টকে মারধর করে হামলাকারীরা।

এ খবর ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে কেন্দ্র এলাকার আশপাশে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। শুরু হয় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কেন্দ্রে অবস্থান নেন এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

হামলাকারীদের ভয়ে ভোটকেন্দ্র এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এবং কিছু সময়ের জন্য ভোটগ্রহণ বন্ধ রাখা হয়।

শৈলকুপা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কানিজ ফাতেমা লিজা জানান, হামলাকারীরা কেন্দ্রে ঢুকে পড়ে এবং ভাঙচুর শুরু করে দেয়। এ হামলার সময় ভোটগ্রহণ বন্ধ থাকে তবে কিছু সময় পরে আবারও ওই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরু করা হয়।

এদিকে এ ঘটনার আহতদের মধ্যে স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা সাগর গুরুতরভাবে আহত হন। তাকে হরিনাকুন্ডু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। কেন্দ্রে হামলার ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়েছে।

তবে অন্যান্য ভোট কেন্দ্রগুলোতে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছে বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন অফিসার রোকনুজ্জামান।

তিনি আরও জানান, কোটচাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

সূত্র : যুগান্তর
এন এইচ, ৩০ জানুয়ারি

Back to top button