পশ্চিমবঙ্গ

আমি কান ধরে হিন্দি শেখাতে পারি, নাম না করে মোদীকে কটাক্ষ মমতার

কলকাতা, ২৯ জানুয়ারি – প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর উচ্চারণ নিয়ে বিতর্কের শেষ নেই। প্রায়শই এই নিয়ে বিজেপি নেতারা কটাক্ষ করেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। সুযোগ পেলে প্রধানমন্ত্রীকে খোঁচা দেন তৃণমূল নেতারা। এসবের মাঝে তৃণমূল ভবনে কলকাতার বাইপাসে বৃহস্পতিবার বিকেলের বৈঠকে হিন্দি ভাষা নিয়ে আলোচনা চলাকালীন আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে মমতা বলেছেন, ওরা আমাকে কী হিন্দি শেখাবে।

আমি কান ধরে ওদের হিন্দি শেখাব। বাংলার মতোই হিন্দি ভাষা শেখার অধিকার আমার আছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে কটাক্ষ করে বলেছেন, উনি তো টেলিপ্রম্পটার দেখে বক্তব্য রাখেন। গুজরাটি ছাড়া কিছুই জানেন না। আমি হিন্দি পড়তেও পারি। বাংলায় বসবাসকারী হিন্দিভাষীদের জন্য যা যা করেছেন তা ফের সকলের সামনে তুলে ধরেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আক্রমণ করেছেন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনকে। তার বাংলা সফর প্রসঙ্গে বলেছেন, উনি এখন বাংলায় এসে মিটিং করছেন। কিন্তু তাতে কোনও লাভ হবে না। যান ঝাড়খণ্ডের কাজ করুন।

আরও পড়ুন : ফের বিজেপি-সায়নী ‘যুদ্ধ’, যৌনকর্মী বলে কটাক্ষ সৌমিত্রের, কড়া জবাবে অভিনেত্রী

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী এবং তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূল ভবনে হিন্দিভাষী সংগঠনের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। আশ্বাস দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের হিন্দি ভাষাভাষী প্রত্যেকের পাশে থাকার। সেই সঙ্গে তুলোধুনা করেছেন বিজেপি নেতাদের। হিন্দিভাষা প্রসঙ্গে খোঁচা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে।

একইসঙ্গে তৃণমূল ভবনের বৈঠক থেকে ফের কৃষি আইনের বিরোধিতায় সরব হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বলেছেন, কেন্দ্রে ২জন আছেন, ওদের মতো মন্ত্রী আমি দেখিনি।পরিকল্পনামাফিক কৃষকদের সমস্যার মধ্যে ফেলে দিচ্ছেন। এটা মানব না। দাবি জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগের। বিধানসভার অশান্তি প্রসঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, আজ বিধানসভায় অনেকেই বলছিলেন তারা কৃষি আইনের পক্ষে।

আমি এত চিৎকার করেছি, ওরা পালিয়ে গিয়েছে। এরপরই একুশের নির্বাচনে জিতে ক্ষমতায় এসে কৃষকদের হয়ে লড়ার প্রতিশ্রুতি দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বলেছেন, আসন্ন নির্বাচনে আগের থেকে বেশি ভোটে জিতবেন। হিন্দিভাষী মানুষদের পাশে থাকবেন। বৈঠক শেষে হিন্দিভাষীদের উদ্দেশ্য করে হিন্দিতে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, দিদি ঘরের মেয়ে হয়েই থাকবেন তাদের সঙ্গে।

সূত্র : প্রতিদিনের সংবাদ
এন এইচ, ২৯ জানুয়ারি

Back to top button