হবিগঞ্জ

মুক্তিপণ না পেয়ে স্কুলছাত্রকে হত্যা, ‘খুনিদের’ স্বীকারোক্তি

হবিগঞ্জ, ২৬ জানুয়ারি – হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে অপহরণ করে ৮০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে না পেয়ে তানভীর নামের এক স্কুলছাত্রকে হত্যা করেছে তিন যুবক। মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুর ১টায় পুকুর থেকে অপহৃত তানভীরের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার (২৪ জানুয়ারি) রাত ৮টায় উপজেলার নুরপুর ইউনিয়নের পশ্চিম নছরতপুর গ্রামের ফারুখ মিয়ার ছেলে আফরাজ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র তানভীর আহমেদকে (১৬) অপহরণ করেন একই গ্রামের জলিল মিয়ার ছেলে জাহেদ মিয়া (২৪), সৈয়দ আলীর ছেলে উজ্জ্বল মিয়া (২২) ও মলাই মিয়ার ছেলে শান্ত মিয়া (১৮)।

অপহরণ করে তানভীরের বাবা ফারুক মিয়ার কাছে ফোনে মুক্তিপণ বাবদ ৮০ লাখ টাকা দাবি করেন ওই তিন যুবক। অপহরণকারীদের ফোন পেয়ে ঘটনাটি সঙ্গে সঙ্গে শায়েস্তাগঞ্জ থানা পুলিশকে জানায় তার পরিবার।

আরও পড়ুন : শুরুতেই ভ্যাকসিন নিতে আগ্রহী ৩২ শতাংশ মানুষ

পুলিশ অপহরণের সাথে জড়িত সন্দেহে রোববার রাতেই জাহেদ ও শান্তকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে। তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী, অপহরণের মাস্টার মাইন্ড উজ্জ্বলকে মঙ্গলবার সকালে আটক করে পুলিশ।

জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে আটকদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী মঙ্গলবার দুপুর ১টায় হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) রবিউল ইসলাম, শায়েস্তাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অজয় চন্দ্র দেবসহ একদল পুলিশ অপহরণকারী উজ্জ্বলের পুকুর থেকে অপহৃত তানভীরের লাশ উদ্ধার করা হয়।

তানভীরকে গলায় ফাঁস ও বুকে ছুরি মেরে হত্যা করেছে বলে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন ওই তিন যুবক।

শায়েস্তাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অজয় চন্দ্র দেব ঘটনাটির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মুক্তিপণ না পেয়ে অপহরণকারীরা ওই ছেলেটিকে হত্যা করে লাশ গুম করার জন্য পুকুরে ফেলে দেয়। আসামিদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করায় তারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

সূত্র : সিলেটভিউ
এন এ/ ২৬ জানুয়ারি

Back to top button