অপরাধ

থাইল্যান্ডে ১৩ কোটি টাকা পাচার করেছেন ক্যাসিনো সেলিম

ঢাকা, ১১ অক্টোবর- অনলাইন ক্যাসিনাের মাধ্যমে ব্যবসায়ী সেলিম প্রধান প্রায় ১৩ কোটি টাকা থাইল্যান্ডে পাচার করার প্রমাণ পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। থাইল্যান্ডের ব্যাংকক ব্যাংক, দি সায়েম কমার্শিয়াল ব্যাংকে সেলিম প্রধানের ২০ কোটির টাকার বেশি অবৈধ লেনদেনের প্রমাণও মিলেছে।

এছাড়া সেলিম প্রধানের থাইল্যান্ডে প্রধান গ্লোবাল ট্রেডিং, এশিয়া ইউনাইটেড এন্টারটেন্ট মেন্টলি ও তমা হােম পাতায়া কোং লিমিটেড নামে সাতটি কোম্পানির রেকর্ডপত্র পেয়েছে দুদক।

এ বিষয়ে আরও তথ্য-প্রমাণ পেতে দুদকের এন্টি-মানিলল্ডারিং ইউনিট থেকে গত সপ্তাহে থাইল্যান্ডে মিউচ্যুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিসট্যান্স রিকোয়েস্ট (এমএলএআর) পাঠানো হয়েছে।

দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা (পরিচালক) প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে গত ১০ সেপ্টেম্বর তদন্তকারী কর্মকর্তা ও সংস্থাটির উপপরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধানের অনুরোধে সেলিম প্রধানের ২৭ ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করা হয়।

১২ কোটি ২৭ লাখ ৯৫ হাজার ৭৫৪ টাকা অবৈধভাবে অর্জনের অভিযোগে গত ২৭ অক্টোবর সেলিম প্রধানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুদক। এরপরই তাকে সাত দিনের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে তদন্ত কর্মকর্তা। রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে পাচারের তথ্য পাওয়া যায় বলে জানা গেছে।

২০১৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর দুপুরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সেলিম প্রধানকে আটক করে র‌্যাব-১। এরপর তার গুলশান, বনানীর বাসা ও অফিসে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে ২৯ লাখ টাকা, বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ এবং বিভিন্ন দেশের মুদ্রা ও হরিণের চামড়া জব্দ করা হয়। হরিণের চামড়া উদ্ধারের ঘটনায় ওই দিনই সেলিম প্রধানকে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সূত্র: রাইজিংবিডি
আডি/ ১১ অক্টোবর

Back to top button