দক্ষিণ এশিয়া

পাকিস্তানে মন্দিরে ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ

ইসলামাবাদ, ৩১ ডিসেম্বর- পাকিস্তানের উত্তরপশ্চিমাঞ্চলে বুধবার হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের একটি মন্দিরে হামলা চালিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয় শত শত মুসলিম। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা গেছে, মানুষজন হাতুড়ি দিয়ে মন্দির ভাঙছে। এসময় সেখান থেকে কালো ধোঁয়া উড়তে দেখা যায়। খবর আল জাজিরার।

উত্তরপশ্চিমাঞ্চলীয় খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের রাজধানী পেশাওয়ার থেকে ১৬০ কিলোমিটার দক্ষিণপূর্বে অবস্থিত কারাক জেলায় এই মন্দির ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। জেলার পুলিশ প্রধান ইরফানুল্লাহ খান বলেছেন, স্থানীয় ধর্মীয় নেতাদের উস্কানিতে ১০০০-১২০০ লোক হিন্দু মন্দিরটিতে ভাঙচুর চালায়।

আরেকজন পুলিশ কর্মকর্তা রহমতুল্লাহ ওয়াজির রয়টার্সকে বলেছেন, কারাকের মুসলিম ধর্মীয় নেতারা মন্দির সম্প্রসারণের বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ করবেন বলে কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছিলেন। কিন্তু বিক্ষোভের সময় নেতারা ‘উসকানিমূলক বক্তব্য’ দেয়া শুরু করে। এরপর মন্দিরে আগুন দেয়া হয়।

এদিকে হামলার অভিযোগে এখন পর্যন্ত ২৬ জনকে আটক করা হয়েছে বলে এএফপিকে জানিয়েছেন আরেকজন পুলিশ কর্মকর্তা ফজল। আরও ৫০ জনের খোঁজ চলছে। ভিডিও দেখে তাদের শনাক্ত করা হয়েছে।

অন্যদিকে পাকিস্তানের ধর্মমন্ত্রী নুরুল হক কাদরি এই হামলাকে ‘ধর্মীয় সম্প্রীতির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র’ বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেন, ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের প্রার্থনাস্থলে হামলা ইসলাম সমর্থন করে না। সংখ্যালঘুদের ধর্মীয় স্বাধীনতা রক্ষা আমাদের ধর্মীয়, সাংবিধানিক, নৈতিক ও জাতীয় দায়িত্ব বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

উল্লেখ্য, পাকিস্তানের প্রায় ৮০ লাখ হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় চারটি ধর্মীয় স্থানের মধ্যে এই মন্দির একটি। উনিশ শতকের শুরুতে মন্দিরটি নির্মাণ করা হয়েছিল। ১৯৯৭ সালে মন্দিরটি একবার ভাঙচুর করা হয়। পরে ২০১৫ সালে সুপ্রিম কোর্ট এটি পুনর্নিমাণের নির্দেশ দেন।

আডি/ ৩১ ডিসেম্বর

Back to top button