দক্ষিণ এশিয়া

ইমরান খান ‘মাইনাস’, পিটিআই নতুন চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার গওহর

ইসলামবাদ, ০২ ডিসেম্বর – পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) নেতৃত্বে পরিবর্তন এসেছে। ব্যারিস্টার গহর আলী খান দলটির নতুন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। শনিবার (২ ডিসেম্বর) দলের নতুন নেতৃত্বের নাম প্রকাশ করা হয়। জিও নিউজের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

দলটির চেয়ারম্যান ইমরান খান কারাগারে থাকায় সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনে অযোগ্য বিবেচিত হওয়ায় দলটি নির্বাচনের আগে নতুন নেতৃত্ব সামনে এনেছে। এসব নির্বাচিতের নাম আজ প্রকাশ করা হয়েছে। দলটির প্রধান নির্বাচন কমিশনার নিয়াজুল্লাহ নিয়াজি এ ফল ঘোষণা করেন। এতে ব্যারিস্টার গহর আলী খানকে প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করা হয়।

দলটির চেয়ারম্যানের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় মহাসচিব পদেও পরিবর্তন এসেছে। দলটির কেন্দ্রীয় মহাসচিব নির্বাচিত হয়েছেন ওমর আইয়ুব খান। এ ছাড়া খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের প্রেসিডেন্ট হয়েছেন আলী আমিন গান্দাপুর এবং পাঞ্জাবের প্রেসিডেন্ট হয়েছেন ড. ইয়াসমিন রশিদ।

পাকিস্তানে দলীয় নেতাকর্মীদের ভোটের মাধ্যমে সব রাজনৈতিক দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব রদবদল হয়। এসব নির্বাচনের ফলও দেশটির কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনে জমা দিতে হয়। আর নির্বাচন কমিশনের এ নির্দেশনা মেনেই নেতৃত্বে পরিবর্তনের জন্য ভোটের আয়োজন করে পিটিআই।

ব্যারিস্টার গহর আলী খান দলের চেয়ারম্যান নির্বাচনের বিষয়টি একপ্রকার নিশ্চিত ছিল। কেননা ইমরান খান নিজেই তাকে নিজের উত্তরসূরি নির্বাচন হিসেবে মনোনীত করেছেন।

দেশটিতে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি সাধারণ নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। এ নির্বাচনে ইমরানের নেতৃত্বাধীন পিটিআইয়ের অংশ নেওয়ার বিষয়টি নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছিল। এমন পরিস্থিতির মধ্যে ব্যারিস্টার গহর আলি খান দলের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ৫ আগস্ট পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) দলের প্রধান ইমরান খানকে গ্রেপ্তার করা হয়। তোশাখানা মামলায় তিন বছরের সাজা দেওয়ার পর পর তাকে লাহোরের জামান পার্কের বাসভবন থেকে গ্রেপ্তার করে পাঞ্জাব পুলিশ।

ইমরান খানের বিরুদ্ধে এই তোশাখানা দুর্নীতি মামলা দায়ের করে ইসিপি। মামলার অভিযোগে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন তোশাখানা থেকে প্রাপ্ত উপহারের তথ্য ইসিপির কাছে ইচ্ছে করে গোপন করেছেন ইমরান। সাধারণত বিদেশি সরকার বা রাষ্ট্রপ্রধানদের দেওয়া উপহার তোশাখানায় রাখা হয়। পরে এ মামলায় গত ১০ মে তাকে অভিযুক্ত করা হয়।

পাকিস্তানের সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বর্তমানে প্রায় ১৮০টি মামলা রয়েছে। নিজের এসব মামলাকে তিনি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলেও অভিহিত করেছেন। এ ছাড়া এসব অভিযোগ অস্বীকারও করেছেন তিনি।

সূত্র: কালবেলা
আইএ/ ০২ ডিসেম্বর ২০২৩

Back to top button