শরীয়তপুর

শরীয়তপুরে এমপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ৫

শরীয়তপুর, ০১ ডিসেম্বর – শরীয়তপুরের নড়িয়ায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় বেশকিছু ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।

বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) রাত সাড়ে ৯টার দিকে নড়িয়া বাজার এলাকায় এ সংঘর্ষ ঘটে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শরীয়তপুর-২ আসনে (নড়িয়া-সখিপুর) আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য ও পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম। আর স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন প্রয়াত ডেপুটি স্পিকার বীর মুক্তিযোদ্ধা কর্নেল শওকত আলীর ছেলে ও যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য খালেদ শওকত আলী। এছাড়া একই আসনে বিভিন্ন দলের ১১ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার রাতে নড়িয়া বাজারে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে উভয়পক্ষের সমর্থকরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। দুপক্ষই ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এ সময় অর্ধশতাধিক ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।

সংঘর্ষে দুপক্ষের পাঁচজন আহত হয়েছেন। তাদের নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, মাজেদা শওকত হাসপাতাল ও শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। পরে এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে একটি মামলা করে।

হামলার বিষয়ে যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বতন্ত্র প্রার্থী খালেদ শওকত আলী বলেন, মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে সমর্থকদের নিয়ে আমি নড়িয়ায় আসি। রাত সাড়ে ৯টার দিকে নড়িয়া বাজারে আমার সমর্থকদের ওপর নৌকা প্রার্থীর সমর্থক মোস্তফা শিকদার এবং সুমন শিকদারের নেতৃত্বে হামলা চালানো হয়। হামলায় আমার সমর্থক কনক লস্কর, নড়িয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আল আমিন হামজা, কেদারপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তপন ছৈয়াল ও সুমন মোড়ল আহত হয়েছেন। ঘটনাটি পুলিশকে জানানো হয়েছে। আমি এ ঘটনায় মামলা করবো।

এ বিষয়ে শরীয়তপুর জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক ও নড়িয়া পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ বলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী খালেদ শওকত আলীর সমর্থকরা ক্যাবল ব্যবসার বিরোধ নিয়ে রাতে বাজারে উত্তেজনা সৃষ্টি করেছিল। ওই সময় তারা আমাদের সমর্থকদের ধাওয়া করে। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। খালেদ সমর্থকদের হামলায় আমাদের কর্মী সোহেল আহত হয়েছে। পরে খালেদ শওকত আলী নড়িয়া বাজারে এসে আমাদের সমর্থকদের গালাগালি শুরু করে। তার সমর্থকরা অনেক ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে।

এ বিষয়ে এনামুল হক শামীম বলেন, খালেদ শওকতের লোকজন ক্যাবল ব্যবসার বিরোধ নিয়ে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়ায় জড়িয়েছেন। আমি ঘটনাটি জানার পর পুলিশ ও রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানিয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছি।

জানতে চাইলে নড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান বলেন, দুপক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা-ধাওয়ার ঘটনা ঘটলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় বেশকিছু ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। উভয়পক্ষই থানায় অভিযোগ করবে বলে জানিয়েছে। এখনো কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। এছাড়া ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে বিস্ফোরক আইনে মামলা করেছে। মামলায় অজ্ঞাতদের আসামি করা হয়েছে।

সূত্র: জাগো নিউজ
আইএ/ ০১ ডিসেম্বর ২০২৩

Back to top button