অপরাধ

বিদেশে বসে ভাড়াটে খুনি দিয়ে সৎমাকে হত্যা

ঢাকা, ১০ অক্টোবর- মায়ের মৃত্যুর পর দ্বিতীয় বিয়ে করেছিলেন বাবা এস এম ওবায়দুল্লাহ। এ নিয়ে পারিবারিক কলহ শুরু হয়। বাবার দ্বিতীয় বিয়ে মানতে পারেননি জার্মান প্রবাসী ছেলে বিপ্লব হোসেন। পরিকল্পনা করে খুনি ভাড়া করে প্রথমে ভাড়াটিয়া হিসেবে নিজ বাসায় আশ্রয় দেন। পরে গত ২ অক্টোবর পরিকল্পনা মতো রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর থানার হুজুরপাড়ায় নিজ বাসায় বিপ্লবের সৎমা সেলিনা খানমকে হত্যা করে ভাড়াটে খুনি জান্নাতুল ফেরদৌস নাইম (১৮)।

২ অক্টোবর কামরাঙ্গীরচরে নিজ বাসায় ছুরিকাঘাতে সেলিনা খানম হত্যার ঘটনার এক সপ্তাহের ব্যবধানে তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে অভিযুক্ত ভাড়াটে খুনি নাইমকে গ্রেফতার করে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা লালবাগ বিভাগ।

নিহত সেলিনার স্বামীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে কামরাঙ্গীরচর থানায় হত্যা মামলা হয়। এ মামলার ঘটনা থানা পুলিশের পাশাপাশি ডিবি লালবাগ বিভাগ ছায়া তদন্ত শুরু করে।

এ বিষয়ে গোয়েন্দা লালবাগ জোনাল টিমের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার শামসুল আরেফীন বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় অভিযুক্তের অবস্থান শনাক্ত করে (৯ অক্টোবর) রাতে নড়াইল জেলার নড়াগাতি থানা এলাকা থেকে নাইমকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারের পর নাইমের দেয়া তথ্য ও দেখানো মতে রাজধানীর ভাষানটেক এলাকায় তার মামার বাসা থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার করা হয়।

শামসুল আরেফীন বলেন, গত ডিসেম্বরে কামরাঙ্গীরচর থানার হুজুরপাড়া এলাকার এস এম ওবায়দুল্লাহর স্ত্রী মারা যান। সাম্প্রতি ওবায়দুল্লাহ ভিকটিম সেলিনা খানমকে বিয়ে করেন। পিতার এ দ্বিতীয় বিয়ে মেনে নিতে পারেননি তার জার্মান প্রবাসী ছেলে বিপ্লব হোসেন। বিয়েকে কেন্দ্র করে পারিবারিক কলহের সৃষ্টি হয়।

কলহের একপর্যায়ে বিপ্লব তার সৎমা সেলিনা খানমকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। বিপ্লবের বাড়ি নড়াইল হওয়ায় ওই এলাকার একজনের মাধ্যমে দুই লাখ টাকার বিনিময়ে সেলিনাকে হত্যার জন্য নাইমকে ঠিক করা হয়।

তিনি আরও বলেন, সেলিনাকে হত্যার জন্য বিপ্লব ৫০ হাজার টাকা ও একটি ছুরি নড়াইলের অজ্ঞাত ব্যক্তির মাধ্যমে নাইমকে সরবরাহ করেন। পরিকল্পনা মতে ভিকটিমের বাসা নাইম ভাড়া নেয়। সুযোগ বুঝে গত ২ অক্টোবর ভিকটিমকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়। হত্যার পর বিপ্লব ৩ অক্টোবর বিকাশের মাধ্যমে নাইমকে ৬০ হাজার টাকা দেয়। হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনায় বিপ্লবের সঙ্গে সমন্বয় করেন বাদীর সৌদি প্রবাসী ভাই মিজান বলে জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

গ্রেফতার নাইমকে কামরাঙ্গীরচর থানায় করা মামলায় শনিবার (১০ অক্টোবর) আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

সূত্র: জাগোনিউজ

আর/০৮:১৪/১০ অক্টোবর

Back to top button