জাতীয়

দ্বিতীয় বুস্টার ডোজের আওতায় ৭ লাখ ৪ হাজার মানুষ

ঢাকা, ২৪ জানুয়ারি – বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশব্যাপী দ্বিতীয় বুস্টার বা চতুর্থ ডোজের কার্যক্রম চলছে। গত ২৪ ঘণ্টায় এ টিকার দ্বিতীয় বুস্টার পেয়েছেন ৩০ হাজার ২৭২ জন। আর এখন পর্যন্ত এ ডোজের আওতায় এসেছেন ৭ লাখ ৪ হাজার ৭৪৯ জন।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন শাখার (এমআইএস) পরিচালক ও লাইন ডিরেক্টর অধ্যাপক ডা. মো. শাহাদাত হোসেন স্বাক্ষরিত করোনার টিকাদান বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা যায়।

এতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশব্যাপী প্রথম ডোজের টিকার আওতায় এসেছে ৪১ হাজার ৬৪৭ জন। দ্বিতীয় ডোজের আওতায় ৪ লাখ ৫১ হাজার ৯৬৬ জন এবং বুস্টার ডোজের আওতায় ৫৪ হাজার ২৮৩ জন। আর দ্বিতীয় বুস্টার ডোজের আওতায় এসেছেন ৩০ হাজার ২৭২ জন মানুষ।

করোনার টিকা শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত প্রথম ডোজের আওতায় এসেছেন ১৫ কোটি ২ লাখ ১৯ হাজার ৪ জন। দ্বিতীয় ডোজের আওতায় এসেছেন ১৩ কোটি ১৭ লাখ ২০ হাজার ৭২১ জন। বুস্টার (তৃতীয়) ডোজের আওতায় এসেছেন ৬ কোটি ৫৭ লাখ ১১ হাজার ৭৭৬ জন। আর দ্বিতীয় বুস্টার বা চতুর্থ ডোজের আওতায় এসেছেন ৫ লাখ ৯৫ হাজার ৪ জন।

তাদের সবাইকে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা, সিনোফার্ম, ফাইজার, মডার্না ও জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকা দেওয়া হয়েছে।

এরমধ্যে এখন পর্যন্ত ১ কোটি ৭৪ লাখ ৮ হাজার ৮৬৬ জন শিক্ষার্থীকে (১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী) টিকার প্রথম ডোজ টিকা এবং ১ কোটি ৬২ লাখ ৩২ হাজার ২৯৫ জন শিক্ষার্থীকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, এখন পর্যন্ত ১ কোটি ৮৭ লাখ ৮৭ হাজার ৩৪৬ জন শিশুকে (৫ থেকে ১১ বছর বয়সী) করোনা প্রথম ডোজ এবং ৭৫ লাখ ১৬ হাজার ৯৫৩ জন শিশুকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া দেশে এখন পর্যন্ত ৫ লাখ ৮১ হাজার ৫৪২ জন ভাসমান জনগোষ্ঠীকে জনসন অ্যান্ড জনসনের সিঙ্গেল ডোজের টিকা দেওয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে বুস্টার ডোজ পেয়েছেন ২৬ হাজার ৩২০ জন।

সূত্র: আরটিভি নিউজ
আইএ/ ২৪ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button