দক্ষিণ এশিয়া

কার্বন মনোক্সাইড বিষক্রিয়ায় আফগানিস্তানে অসুস্থ ১৪০

কাবুল, ১৮ জানুয়ারি – কার্বন মনোক্সাইড বিষক্রিয়ায় আফগানিস্তানের একটি আঞ্চলিক হাসপাতালে অন্তত ১৪০ জন চিকিৎসাধীন। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গত ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হেরাত প্রদেশের এসব মানুষকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা আরও জানিয়েছেন, নিজের বাড়িতে কার্বন মনোক্সাইড বিষক্রিয়ায় অসুস্থ হয়ে পড়েন এসব শিশু ও নারীরা।

হেরাত আঞ্চলিক হাসপাতালের প্রধান আহমেদ ফারহাদ আফজালি জানান, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ১৩০ থেকে ১৪০ জনকে জরুরি বিভাগে আনা হয়েছে।

হেরাতের বাসিন্দারা বলছেন, তারা তাদের ঘর গরম করার একমাত্র বিকল্প হিসাবে গ্যাস ব্যবহার করছেন।

আব্দুল কাদির নামে হেরাতের এক বাসিন্দা জানান,‘আমি যদি পাঁচ মিনিট দেরিতে পৌঁছাতাম তাহলে আমি আমার পরিবারের ২১ জন সদস্যকে হারিয়ে ফেলতাম।’

হেরাতের আরেক বাসিন্দা বলেন, ‘আমাদের ক্ষমতা নেই, এবং আমরা গ্যাস ব্যবহার করতে বাধ্য হচ্ছি। তিনি আরও জানান, এখন পর্যন্ত, আমার পরিবারের দুই সদস্য কার্বন মনোক্সাইডের বিষক্রিয়ায় মারা গেছে।’

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, গ্যাস ব্যবহারে অবহেলার কারণে পরিবারের জন্য ভয়ানক ক্ষতি হতে পারে। ওই হাসপাতালের চিকিৎসক মোহাম্মদ দাউদ হাশিমি বলেন, ‘পরিবারের অবহেলার কারণে কার্বন মনোক্সাইডের বিষক্রিয়া ঘটে এবং এটি বিধ্বংসী ঘটনা ঘটায়।

হঠাৎ করে দেশটির তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় হাসপাালে রোগীর সংখ্যা বেড়েছে বলেও জানিয়েছেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা।

জানা গেছে, এ ধরনের ঘটনা ঘটে যখন ঘর গরম করার জন্য কয়লা ব্যবহার করা হয়। এটি মানুষের মধ্যে কার্বন মনোক্সাইড বিষক্রিয়া তৈরি করে। কার্বন মনোক্সাইড বিষক্রিয়া সাধারণত শ্বসনের সময় অতিরিক্ত মাত্রায় কার্বন মনোক্সাইড গ্রহণের ফলে সৃষ্টি হয়। খুব বেশি মাত্রায় কার্বন মনোক্সাইড গ্রহণের ফলে জ্ঞান হারিয়ে ফেলা, অ্যারিথমিয়া, খিঁচুনি, বা মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে যে কোনো মানুষের।

সূত্র: জাগো নিউজ
আইএ/ ১৮ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button