ক্রিকেট

শ্রীলংকাকে হারিয়ে বিশ্বকাপে বাংলাদেশের টানা দুই জয়

প্রিটোরিয়া, ১৬ জানুয়ারি – দাপুটে ক্রিকেটে নারী অনূর্ধ্ব-১৯ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেও জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ। এবার শ্রীলংকাকে ১০ রানে হারিয়ে সুপার সিক্সের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে দিশা বিশ্বাসের নেতৃত্বে দলটি।

চলমান আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে উড়ন্ত সূচনা করেছিল বাংলাদেশ। সে ম্যাচে অজিদের ৭ উইকেটে উড়িয়ে দিয়েছিল টাইগ্রেসরা।

আজ সোমবার দক্ষিণ আফ্রিকার বেনোনিতে গ্রুপ ‘এ’র ম্যাচে খেলতে নামে দুদল। যেখানে প্রথমে ব্যাট করা বাংলাদেশ নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ২ উইকেট হারিয়ে ১৬৫ রান করে। জবাবে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৫৫ রানে থামে শ্রীলংকা।

টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে দারুণ শুরু পায় বাংলাদেশ। ১১.১ ওভারে উদ্বোধনী জুটিতে ৭৫ রান তোলেন দুই ওপেনার আফিয়া প্রত্যাশা ও মিষ্টি শাহা। মিষ্টি ২৪ বলে ব্যক্তিগত ১৪ রানে রান আউটের শিকার হন।

দলীয় ৪ রানের ব্যবধানে আফিয়া ফিরে গেলেও অসাধারণ এক হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন। রেশমি নেত্রাঞ্জলির বলে বোল্ড হওয়ার আগে ৪৩ বলে ৫টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৫৩ রান করেন।

ইনিংসের বাকি সময় আর কোনো উইকেট হারায়নি বাংলাদেশ। দিলারা আকতার ২৭ বলে ৩টি চার ও একটি ছক্কায় ৩৬ রানে অপরাজিত থাকেন। অন্যপ্রান্তে অপরাজিত থাকা স্বর্ণা আকতার ছিলেন আরও বিধ্বংসী। তিনি ২৮ বলে ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ঠিক ৫০ রান করেন।

ব্যাটিংয়ের পর বোলিংয়েও শুরুটা ভালো করে বাংলাদেশ। লংকানদের দলীয় ২৪ রানে দুটি উইকেট তুলে নেয় তারা। প্রথম ওভারে শূন্য রানে নেথামি সেনারত্নাকে রাবেয়া খানের ক্যাচে ফেরান মারুফা আকতার। আর চতুর্থ ওভারে ব্যক্তিগত ৩ রানে থাকা সুমুদু নিসানসালাকে বোল্ট করেন দিশা বিশ্বাস।

তবে এরপর তৃতীয় উইকেট জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় শ্রীলংকা। ৯৪ রানের পার্টনারশিপ গড়েন অধিনায়ক বিশামি গুনারত্নে ও দিওয়ামি বিহাঙ্গা। অবশেষে এই জুটি ভাঙেন মারুফা। বিহাঙ্গাকে ৫৫ রানে এলবি করেন তিনি। ৪৪ বলে ৭টি চার ও ২টি ছক্কায় নিজের ইনিংস সাজান এই লংকান।

মানুদি নানায়াক্কারাকে ৪ রানে রান আউট করেন স্বর্ণা ও দিশা। তবে শেষ পর্যন্ত লড়ে যান দলনেতা গুনারত্নে। ৫৪ বলে তিনি ৮টি চার ও একটি ছক্কায় ৬০ রানে অপরাজিত থাকেন। আর ইনিংসের শেষ ৩ বল খেলা দুসাঙ্গা দিশানায়েক তিনটি চারে ১২ রানে অপরাজিত ইনিংস খেলেন।

বাংলাদেশ বোলার মারুফা ২টি ও দিশা একটি উইকেট পান।

সূত্র: আমাদের সময়
আইএ/ ১৬ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button