দক্ষিণ এশিয়া

আদালতেই পাকিস্তানের আইনজীবী নেতাকে গুলি করে হত্যা

ইসলামাবাদ, ১৬ জানুয়ারি – পাকিস্তানের পেশোয়ার হাইকোর্টের বার রুমে সোমবার এক শিক্ষানবিশ আইনজীবীর গুলিতে নিহত হয়েছেন দেশটির বিশিষ্ট আইনজীবী আবদুল লতিফ আফ্রিদি।

৭৯ বছরের আবদুল লতিফ আফ্রিদি, পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি এবং পাকিস্তানে আইনজীবীদের আন্দোলনের একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব ছিলেন। ১৯৭৯ সালে বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি থাকাকালীন আফ্রিদি সামরিক আইনের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। এসময় পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট জেনারেল মুহম্মদ জিয়া-উল-হকের নির্দেশে তাকে কারাবন্দী করা হয়।

স্থানীয় পুলিশের বরাতে পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম ডন জানিয়েছে, সোমবার আফ্রিদি পেশোয়ার হাইকোর্টের বার রুমে বসে ছিলেন, যখন আদনান নামে এক শিক্ষানবিশ আইনজীবী তাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়।

পুলিশ জানিয়েছে, গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর আফ্রিদিকে তাৎক্ষণিকভাবে এখানকার লেডি রিডিং হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়, কিন্তু হাসপাতালে পৌঁছানোর পর চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

হাসপাতালের মুখপাত্র মুহাম্মদ আসিম জানিয়েছেন, আফ্রিদিকে লক্ষ্য করে ছয়টি গুলি করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল থেকেই হামলাকারী আদনানকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। কড়া নিরাপত্তায় তাকে সেখানকার সন্ত্রাসবিরোধী আদালতে স্থানান্তর করা হয়। ব্যক্তিগত শত্রুতা থেকে এ হামলা চালানো হয়েছে বলে সন্দেহ করছে পুলিশ। এছাড়াও আদনান কীভাবে পেশোয়ার হাইকোর্ট প্রাঙ্গণে পিস্তল আনতে পেরেছিল তাও তারা তদন্ত করছে।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরীফ আফ্রিদির হত্যাকাণ্ডে গভীর দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

অন্যদিকে, পেশোয়ার বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আলী জামান, আফ্রিদির হত্যার প্রতিবাদে খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশ জুড়ে দুই দিনের আদালত বয়কটের ঘোষণা দিয়েছেন।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
আইএ/ ১৬ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button