জাতীয়

ভোটার বেড়েছে ৫৭ লাখ ৭৪ হাজার ১৪৮ জন

ঢাকা, ১৫ জানুয়ারি – দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। এই তালিকা অনুযায়ী, নতুন ভোটার যুক্ত হয়েছে ৭৯ লাখ ৮৩ হাজার ২৭৭ জন। পাশাপাশি এবারের হালনাগাদে মৃত্যুজনিতসহ অন্যান্য কারণে কর্তন হয়েছে ২২ লাখ ৯ হাজার ১২৯ জন। সব মিলিয়ে নতুন ভোটার বাড়ছে ৫৭ লাখ ৭৪ হাজার ১৪৮ জন। সব মিলিয়ে ১১ কোটি ৯০ লাখ ভোটার রয়েছে ২০২৩ সালে।

রবিবার (১৫ জানুয়ারি) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ করেন নির্বাচন কমিশনের সচিব জাহাঙ্গীর আলম। আগামী ২ মার্চ পূর্ণাঙ্গ ভোটার তালিকা প্রকাশ করবে নির্বাচন কমিশন। সেই তালিকা অনুযায়ী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দেওয়ার সুযোগ পাবেন ভোটাররা।

গত মে থেকে নভেম্বর পর্যন্ত ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম চলে। তিন বছর পর পর এই তালিকা হালনাগাদ করা হয়। ২০১৬ ও ২০১৯ সালও বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। ১৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী ও ভোটার যোগ্যদের তথ্য সংগ্রহ করা হয় হালনাগাদ কার্যক্রমে।

এবারের হালনাগাদের তথ্য তুলে ধরে সচিব জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এই চূড়ান্ত ভোটার তালিকা দিয়ে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এবার ভোটারযোগ্য হয়েছেন ৭৯ হাজার ৮৩ লাখ ২৭৭ জন।

সচিব বলেন, সব মিলিয়ে মৃতদের বাদ ও নতুনদের অন্তর্ভুক্ত করে এ বছরের খসড়া ভোটার তালিকা নতুন অন্তর্ভুক্তযোগ্য ভোটারের সংখ্যা ৫৭ লাখ ৭৪ হাজার ১৪৮ জন, ফলে ভোটার বাড়লো ৫ দশমিক ১০ শতাংশ। এখন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ভোট দিতে পারবেন এমন ভোটারের সংখ্যা দাঁড়াবে ১১ কোটি ৯০ লাখ ৬১ হাজার ১৫৮ জন।

তিনি জানান, খসড়া তালিকা প্রকাশের পর নাম বা অন্যান্য তথ্য সংশোধনের জন্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করতে পারবেন সংশ্লিষ্টরা। দাবি, আপত্তি নিষ্পত্তি করে ২ মার্চ চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হবে।

খসড়া তালিকার ভোটারসহ মোট ভোটারদের মধ্যে পুরুষ ৬ কোটি ৩ লাখ ৮৩ হাজার ১১২ জন, নারী ৫ কোটি ৮৬ লাখ ৭৭ হাজার ২০৯ জন এবং হিজড়া ৮৩৭ জন। ২০২৩ সালের শেষে বা ২০২৪ সালের শুরুতে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন হবে, যারা এ নির্বাচনে ভোট দিতে পারবেন।

এর আগে ২০২২ সালের ২ মার্চ ভোটার ছিল ১১ কোটি ৩২ লাখ ৮৭ হাহার ১০ জন। এরমধ্যে পুরুষ ৫ কোটি ৭৬ লাখ ৮৯ হাজার ৫২৯ জন, নারী ৫ কোটি ৫৫ লাখ ৯৭ হাজার ২৭ জন এবং হিজড়া ৪৫৪ জন। হালনাগাদে যুক্ত (২০২২ সালে) হন ৭৯ লাখ ৮৩ হাজার ২৭৭ জন। এরমধ্যে পুরুষ ৪০ লাখ ৭২ হাজার ৪৫৫ জন, নারী ৩৯ লাখ ১০ হাজার ৪৩৯ জন এবং হিজড়া ৩৮৩ জন। মৃত্যুর পর ভোটার তালিকা থেকে বাদ ২২ লাখ ৯ হাজার ১২৯ জন।

গত বছর ২০ মে থেকে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত দেশজুড়ে চার ধাপে ভোটারযোগ্য ব্যক্তিদের তথ্য সংগ্রহ চলে। এ সময় বর্তমান ভোটার তালিকা থেকে বাদ দিতে মৃতদের তথ্য সংগ্রহও করা হয়েছে; এবার মৃত ভোটারের তথ্যও নেওয়া হয়।

ইসি কর্মকর্তারা জানান, এবার ভোটার তালিকা হালনাগাদে ১৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী এবং ভোটারযোগ্য (আগে যারা বাদ পড়েছেন) নাগরিকের তথ্য সংগ্রহ করে নির্বাচন কমিশন। এরমধ্যে ২০২৩ সালে নতুন যারা ভোটার তালিকাভুক্ত হচ্ছেন তারা দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ভোট দিতে পারবেন। বাকিরা ২০২৪ ও ২০২৫ সালে ১৮ বছর বা তার বেশি বয়সী হওয়ার পর স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভোটার তালিকায় যুক্ত হবেন।

২০০৭-২০০৮ সালে ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা প্রণয়নের পর এ পর্যন্ত ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়েছে পাঁচবার।

সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন
এম ইউ/১৫ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button