ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ধাক্কা দেওয়া নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষ, পুলিশ মোতায়ন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ১৪ জানুয়ারি – ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে পথচারির শরীরে অটোরিকশার ধাক্কা লাগাকে কেন্দ্র করে দুই দফায় দুই পক্ষের মধ্যে হওয়া সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশকে লাঠিপেটার পাশাপাশি ২০ রাউন্ড টিয়ার সেল ও রাবার বুলেট ছুঁড়তে হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে বেশ কয়েকটি দোকান ও বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয়।

পুলিশ ও আহতদের সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার রাতে উপজেলার দূর্গাপুর গ্রামের বারঘরিয়া গোষ্ঠীর বাড়িতে ওয়াজ মাহফিল চলছিল। ওয়াজ মাহফিলকে কেন্দ্র করে রাস্তার ওপর কিছু ভাসমান দোকানপাট বসায় চলাচলের রাস্তা সংকুচিত হয়। ওই রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় জারু মিয়ার বাড়ির মো. রুহুল আমিন অটোরিকশাটি বারঘরিয়া গোষ্ঠীর একজনের গায়ে লাগে। এনিয়ে কথা কাটাকাটির পর বারঘরিয়া গোষ্ঠীর লোকজন রহুল আমীনকে মারধর ও অটোরিকশার কাচ ভাঙচুর করে।

বিষয়টি রুহুল তার গোষ্ঠীর লোকজনকে জানায়। এ অবস্থায় রুহুল আমিনের গোষ্ঠীর লোকজন রাস্তায় দাঁড়িয়ে বারঘরিয়া গোষ্ঠির দুটি অটোরিকশা আটক করে। সমস্যা সমাধানে এগিয়ে গিয়ে মিজান মিয়া নামে স্থানীয় ইউপি মেম্বার হামলার শিকার হন। এসব ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়ালে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। রাতের ঘটনার জেরে শনিবার বেলা ১১টার দিকে উভয় পক্ষের শত শত লোক দেশীয় অস্ত্র নিয়ে পুনরায় সংঘর্ষে জড়ায়। আবারও পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

দূর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. রাসেল মিয়া জানান, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। স্থানীয়ভাবে বিষয়টি মীমাংসার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তবে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত আছে বলে তিনি নিশ্চিত করেছেন।

আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজাদ রহমান জানান, সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এ বিষয়ে কোনো পক্ষ থেকে থানায় লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সূত্র: কালের কণ্ঠ
এম ইউ/১৪ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button