জাতীয়

বিশ্ব ইজতেমা: মুসল্লিরা ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন

গাজীপুর , ১৩ জানুয়ারি – গত দু’দিন ধরে টঙ্গীতে বিশ্ব ইজতেমার ময়দানে অবস্থানরত মুসল্লিরা ডায়রিয়া, অ্যাজমা,জ্বরে আক্রান্ত হয়ে পড়েছেন। তাদের অনেকেই ইজতেমা ময়দানের পাশে থাকা বিভিন্ন ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পে এবং টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা ও ভর্তি হয়েছেন।

ময়দানের ১ নম্বর খিত্তায় অবস্থানরত গাজীপুর মহানগরের ভোগড়া এলাকার বাসিন্দা মাসুদ রানা জানান, পার্শ্ববর্তী ১৩ ও ১৪ নং টয়লেট ভবনের সামনে থাকা হাউসের পানি ময়লাযুক্ত এবং ময়লাগুলো অধিকাংশ সময় ভাসতে দেখা যাচ্ছে। ময়লাযুক্ত এ পানি রান্নাবান্না ও খাবারের কাজে ব্যবহার করছে মুসল্লিরা। এর ফলে ডায়রিয়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মুসল্লিরা।

ময়মনসিংহ থেকে ইজতেমা ময়দানে আসা মোবারক হোসেন জানান, ইজতেমা মাঠের ভেতরে জায়গা না পাওয়ায় ফুটপাতসহ রাস্তার আশেপাশে খোলা জায়গায় পলিথিন কিংবা ত্রিপল টানিয়ে মুসল্লিরা ইজতেমায় অংশ নেয়ার জন্য অবস্থান করছেন। ধুলোবালি, শীত ও কুয়াশার কারণে তিনিসহ অনেকেই জ্বর ও ঠান্ডায় আক্রান্ত হয়ে পড়েছেন। এতে মুসল্লিরা ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প এবং হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে ভিড় জমাচ্ছেন।

এ ব্যাপারে গাজীপুর জনস্বাস্থ্য’র নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আলমগীর হোসেনের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

হামদর্দ ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পের কর্তব্যরত চিকিৎসক মোঃ খোরশেদ আলম জানান, গত দুই দিনে প্রায় দুই হাজার মুসল্লিকে চিকিৎসা সেবা দিয়েছেন। তাদের অধিকাংশই ডায়রিয়া এ্যাজমা ও জ্বরে আক্রান্ত ছিলেন।

টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের পরিচালক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম জানান, এ হাসপাতলে গত ২৪ ঘণ্টায় শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত ১ হাজার ৩১৩ জন মুসল্লিকে চিকিৎসা নিয়েছেন। তাদের মধ্যে একজন বিদেশীসহ ১০ জন ভর্তি এবং তিনজনকে রেফার্ড করেছেন ঢাকায়। তাদের বেশিরভাগই ডায়রিয়া, এ্যাজমা ও জ্বরে আক্রান্ত। ধুলাবালি এবং পানি দূষণের কারণে উদরাময় তথা ডায়রিয়া এবং কুয়াশা ও ধুলাবালি থেকে ঠান্ডা ও এ্যাজমাজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন মুসল্লিরা।

বিশ্ব ইজতেমায় দেশ বিদেশের লাখো মুসল্লির পদচারণায় মুখরিত তুরাগ তীর। এবারের ইজতেমায় অন্য কয়েক বছরের তুলনায় মুসল্লিদের সমাগম একটু বেশি। মূল ময়দানে জায়গা না পেয়ে অনেক মুসল্লি সড়ক ও টয়লেট বিল্ডিং এর ছাদে খোলা আকাশের নিচে অবস্থান নিয়েছেন। প্রচন্ড শীত আর কুয়াশায় দুর্ভোগে পড়েছেন তারা। অনেকে শীত জনিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
আইএ/ ১৩ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button