পশ্চিমবঙ্গ

দিল্লিযাত্রা আটকাতে পারবেন কেষ্ট? দিল্লি হাইকোর্টে আজই শুনানি

কলকাতা, ১৩ জানুয়ারি – দিল্লি হাইকোর্টে (Delhi High Court) শুক্রবার অনুব্রত মণ্ডলের (Anubrata Mondal) মামলার শুনানি। অনুব্রত মণ্ডলকে দিল্লিতে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার নির্দেশ দিয়েছিল দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউ আদালত। সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে দিল্লি হাইকোর্টে আবেদন জানান অনুব্রতর আইনজীবী। গরু পাচার মামলা এবং ইডির তদন্ত বিষয়ক একাধিক মামলার শুনানি হওয়ার কথা এদিন। দিল্লি হাইকোর্টের বিচারপতি দীনেশকুমার শর্মার এজলাসে এই শুনানি হওয়ার কথা। অনুব্রত মণ্ডলকে শ্যোন অ্যারেস্ট করে ইডি। শ্যোন অ্যারেস্টের কারণ জানতে চেয়ে দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন অনুব্রত। এর আগে দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউ আদালত অনুব্রতকে দিল্লি নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিলে দুবরাজপুর থানার একটি মামলায় অনুব্রতকে গ্রেফতার করা হয়। ফলে সে সময় আটকে গিয়েছিল অনুব্রতর দিল্লিযাত্রা। যদিও দুবরাজপুরের মামলায় ইতিমধ্যেই জামিন পেয়েছেন তিনি। এখন তাঁর ঠিকানা আসানসোলে সিবিআইয়ের বিশেষ সংশোধনাগার। তবে দুবরাজপুরের মামলায় জামিনের সঙ্গে সঙ্গেই দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন অনুব্রত।

গত ১৯ ডিসেম্বর দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউ আদালতের অনুমতি পায় ইডি। বলা হয় তৃণমূলের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকে দিল্লিতে নিয়ে গিয়ে জেরা করতে পারবে ইডি। যেদিন এই নির্দেশ আদালত দিল, ঠিক তার পরদিন সকালেই দুবরাজপুর থানার পুলিশ অনুব্রতকে গ্রেফতার করে। তৃণমূল কর্মী শিবঠাকুর মণ্ডলের দায়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয়। শিবঠাকুরের অভিযোগ ছিল, অনুব্রত মণ্ডল তাঁর গলা টিপে ধরেন। তাঁকে মারার চেষ্টা করা হয়। যদিও এ নিয়ে রাজনীতির আকচাআকচি কম হয়নি।

অনুব্রতকে দিল্লি যেতেই হবে, বারবার এ কথা শোনা গিয়েছে বিজেপির শুভেন্দু-সুকান্তদের গলায়। পাল্টা তৃণমূলও শুনিয়েছে, আইনের তো আইনের পথে চলবেই। কিন্তু বিজেপি নেতারা কীভাবে এমন ভবিষ্যৎবাণী করছেন? তারা প্রশ্ন তুলেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলির সঙ্গে বিজেপির যোগ নিয়েও। অনুব্রতর দিল্লিযাত্রা নিয়ে বিভিন্নমহলে নানা চর্চা। এখনও অবধি আইনি পথে অনুব্রত তাঁর দিল্লি যাওয়া রুখতে পেরেছেন। তবে শুক্রবার দিল্লি হাইকোর্ট কী নির্দেশ দেয় সেদিকে নজর সকলের।

সূত্র: টিভি নাইন
আইএ/ ১৩ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button