ইউরোপ

সোলেদার শহর ছেড়ে দিচ্ছে ইউক্রেনীয় বাহিনী

কিয়েভ, ১৩ জানুয়ারি – পূর্বাঞ্চলীয় সোলেদার শহরে এখনও প্রচণ্ড যুদ্ধ চলছে বলে জানিয়েছে ইউক্রেন। তবে দেশটির সামরিক বাহিনীর একজন মুখপাত্র আভাস দিয়েছেন, তদের কম্যান্ডাররা সোলেদার থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নেবার কথা বিবেচনা করছেন। খবর বিবিসির।

দেশটির ডেপুটি প্রতিরক্ষামন্ত্রী হান্না মালিয়ার সোলেদারের পরিস্থিতি তার ভাষায় কঠিন বলে উল্লেখ করেন। শহরটির বড় এলাকাই ধ্বংস হয়ে গেছে।

ইউক্রেনীয় মুখপাত্রটি বলছেন, বাখমুট শহরের নিকটবর্তী সোলেদারে তাদের সৈন্যরা রুশ ওয়াগনার বাহিনীর ‘সবচেয়ে ভালোভাবে প্রস্তুতি নেয়া যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে লড়াই করছে।

বুধবারই ওয়াগনারের প্রধান ইয়েভগেনি প্রিগোশিন দাবি করেন যে সোলেদার শহরটি তার বাহিনী দখল করেছে। তবে ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, যে যুদ্ধ এখনো চলছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানাচ্ছে, ইউক্রেনের ডেপুটি প্রতিরক্ষামন্ত্রী হান্না মালিয়ার বলেন, রুশরা তাদের হাজার হাজার লোককে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিচ্ছে, কিন্তু আমরা আমাদের অবস্থান ধরে রেখেছি। এক সংবাদ ব্রিফিংএ তিনি আরো বলেছেন, রাশিয়া ইউক্রেনে তাদের সেনা অবস্থান বাড়াচ্ছে।

হান্না মালিয়ার বলেন, এক সপ্তাহ আগেও ইউক্রেনে রুশ সেনা ইউনিটের সংখ্যা ছিল ২৫০টি। তবে মস্কো এখন এক কৌশলগত উদ্যোগ নিয়ে ইউনিটের সংখ্যা বাড়িয়ে ২৮০টি করেছে ।

এসব ইউনিটে নতুন নিয়োগ-পাওয়া সৈন্যরা রয়েছে বলে ইউক্রেনের সামরিক গোয়েন্দা সূত্রে বলা হয়। আরেকজন উর্ধতন সামরিক কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ওলেক্সেই গ্রোমভ ব্রিফিংএ বলেছেন, ইউক্রেনে সামরিক পরিস্থিতি ‘দুরূহ’।

তার কথায়, পূর্ব ফ্রন্টে প্রচণ্ড লড়াই চালিয়ে রুশ বাহিনী ইউক্রেনের রক্ষণব্যুহ ভেঙে তাদের সৈন্যদের ঘিরে ফেলার চেষ্টা করছে।

গ্রোমভ আরও বলেন, উত্তর দিকে বেলারুসের ভূখন্ড ব্যবহার করে আক্রমণ চালানোর সম্ভাবনা পুরো বছর জুড়েই জোরদার থাকবে।

সূত্র: আমাদের সময়
আইএ/ ১৩ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button