পশ্চিমবঙ্গ

বারাণসী ধাঁচে গঙ্গা আরতি হবে পশ্চিমবঙ্গে, ঘোষণা মমতার

কলকাতা, ১১ জানুয়ারি – বাবুঘাটে গঙ্গাসাগর মেলায় আগত পূণ্যার্থীদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। বারাণসীর ধাঁচে এ রাজ্যেও গঙ্গা আরতির আয়োজন হবে বলেও ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘কলকাতায় গঙ্গা আরতির ব্যবস্থা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১২ জানুয়ারি) স্বামী বিবেকানন্দর জন্মদিন। তাই আগামীকাল থেকে এই গঙ্গা আরতির কাজ শুরু হবে। কাশী বিশ্বনাথে যেভাবে গঙ্গায় আরতি হয়, কলকাতায়ও সেভাবেই হবে।’

মমতা বলেন, ‘বাবুঘাটে সন্ধ্যায় গঙ্গা আরতির ব্যবস্থা করা হবে। কলকাতার এই গঙ্গা আরতি তিলোত্তমার অন্যতম নজরকাড়া গন্তব্য হয়ে উঠবে বলে আমি আশাবাদী।’

কোনো ধরনের অঘটন এড়াতে প্রশিক্ষকদের দিয়ে এই আরতি করানো হবেলে। এছাড়া আগামীতে দক্ষিণেশ্বর, বেলুড় মঠ, কালীঘাট ও তারাপীঠের মতো তীর্থস্থানগুলোতেও গঙ্গা আরতির ব্যবস্থা করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আগে গঙ্গাসাগরে কিছু ছিল না। আমরা সরকারের আসার পর নতুন মন্দির, গেস্ট হাউস, তিনটি হেলিপ্যাড, অতিথি নিবাস, থাকার জায়গার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ১ হাজার ২০০টি বায়ো-টয়লেট তৈরি করা হয়েছে। এই মেলায় জলের ব্যবস্থা করা হয়েছে, বড় বড় তাবু রাখা হয়েছে, হোগলার অস্থায়ী ঘর রয়েছে। এ ধরনের অনেক কাজ হয়েছে।’

এক্ষেত্রে কুম্ভ মেলার প্রসঙ্গ তুলে তিনি বলেন, ‘কুম্ভ জাতীয় মেলা। তাই তারা কেন্দ্র থেকে ফান্ড পায়। কুম্ভ রেলপথের সঙ্গে যুক্ত। কিন্তু আমাদের গঙ্গাসাগর মেলা প্রান্তিক এলাকায়। তাই রেলপথের সঙ্গে যুক্ত নয়।’

এসময় গঙ্গাসাগর মেলায় আগত তীর্থযাত্রীদের উদ্দেশ্যে মমতা ব্যানার্জী বলেন, ‘৭ থেকে ১৭ তারিখের মধ্যে কোনো অঘটন ঘটলে প্রত্যেকের জন্য আগে থেকেই পাঁচ লাখ রুপির বীমা করে রাখা হয়েছে।’

এর আগে গত মঙ্গলবার গঙ্গারতীর কর্মসূচি আয়োজন করতে চেয়েছিল পশ্চিমবঙ্গের বিরোধী দল বিজেপি। কিন্তু তাতে অনুমতি দেয়নি পুলিশ। তা নিয়েই বেশ তোলপাড় হয়েছে রাজ্যে।

সূত্র: জাগো নিউজ
আইএ/ ১১ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button