শিক্ষা

এসএসসি’র ফরম পূরণের সময় বাড়লো

ঢাকা, ১০ জানুয়ারি – চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় বৃদ্ধি করা হয়েছে। বিলম্ব ফি প্রদান করে আগামী ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত এ কার্যক্রম চলবে। ফি জমা দেয়ার শেষ সময় ১৭ জানুয়ারি নির্ধারণ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক আবুল বাসার স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২০২৩ সালের এসএসসি পরীক্ষার বিলম্ব ফিসহ ফরম পূরণের সময় আগামী ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হলো। ফি জমা দেয়ার শেষ তারিখ ১৭ ডিসেম্বর। এ সময়ের পর আর এ বছরের এসএসসি’র ফরম পূরণ করা যাবে না।

গত ১৮ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়ে গত ৪ জানুয়ারি পর্যন্ত বিলম্ব ফি ছাড়া ভর্তি ফরম পূরণ কার্যক্রম চলে। অনলাইনে ফি জমা নেয়া হয় ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত। আর বিলম্ব ফিসহ অনলাইনে ফরম পূরণ চলে ৭ থেকে ৯ জানুয়ারি পর্যন্ত। আর বিলম্ব ফিসহ ফরম পূরণের ফি জমার তারিখ নির্ধারণ হয় ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত।

এদিকে বিজ্ঞান বিভাগের পরীক্ষার্থীদের জন্য ফরম পূরণের ফি ছিল দুই হাজার ১৪০ টাকা, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক বিভাগের ফি ছিল দুই হাজার ২০ টাকা। যা পরীক্ষার্থীদের বেতন ও সেশন চার্জ হিসেবে ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ের মধ্যে পরিশোধ করতে বলা হয়। তবে কোনো শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ২৪ মাসের বেশি বেতন নেয়া যাবে না বলেও উল্লেখ করা হয়।

জিপিএ উন্নয়ন

২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষায় সব বিষয়ে অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে এবং জিপিএ ৫-এর কম পেয়েছে এমন পরীক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশনের মেয়াদ থাকলেও তারা ২০২৩ সালের পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে। তবে তাদের সব বিষয়ের পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। এ পরীক্ষায় জিপিএ উন্নয়ন হলে তা যোগ (বাড়ানো) করা হবে, অন্যথায় আগের ফল বহাল থাকবে।

বহিষ্কৃত পরীক্ষার্থীর জন্য করণীয়

বহিষ্কৃত পরীক্ষার্থীদের শাস্তির মেয়াদ শেষ হয়ে থাকলে এবং রেজিস্ট্রেশনের মেয়াদ থাকলে তারা ২০২৩ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অনিয়মিত পরীক্ষার্থী হিসেবে অংশ নিতে পারবে। একইসঙ্গে তাদের সব বিষয়ে পরীক্ষা দিতে হবে।

অন্যান্য তথ্য

২০২৩ সালের এসএসসি পরীক্ষার পুনর্বিন্যাস করা সিলেবাস অনুযায়ী প্রণীত প্রশ্নপত্রে (নিয়মিত ও অনিয়মিত) পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে পরীক্ষার্থীরা। সব শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে শারীরিক শিক্ষা, স্বাস্থ্য বিজ্ঞান ও খেলাধুলা এবং ক্যারিয়ার এডুকেশন বিষয়ে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের নির্দেশনা অনুসারে ধারাবাহিক মূল্যায়নের মাধ্যমে প্রাপ্ত নম্বর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রকে সরবরাহ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ট কেন্দ্র ব্যবহারিক পরীক্ষার নম্বরের সঙ্গে ধারাবাহিক মূল্যায়নে প্রাপ্ত নম্বর বোর্ডের ওয়েবসাইটে অনলাইনে পাঠাতে বলা হয়েছে।

২০২৩ সালের এপ্রিলে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
আইএ/ ১০ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button