কুমিল্লা

দুদকের অভিযোগ ছিঁড়ে ফেলার কথা জানালেন এমপি, ভিডিও ভাইরাল

কুমিল্লা, ৯ জানুয়ারি – কুমিল্লার চান্দিনা পৌরসভার সাবেক মেয়র মফিজুল ইসলামের বিরুদ্ধে ওঠা দুর্নীতির অভিযোগ দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) ফাইল থেকে ছিঁড়ে ফেলার কথা জানালেন ওই আসনের (কুমিল্লা-৭) সংসদ সদস্য (এমপি) ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত। এ সংক্রান্ত এমপির প্রায় এক মিনিটের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, গত ৪ জানুয়ারি চান্দিনায় ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্‌যাপন শেষে বিকেলে উপজেলা সদরে অবস্থিত সাবেক পৌর মেয়র মফিজুল ইসলামের ব্যক্তিগত কার্যালয়ে যান এমপি ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত। এ সময় তার সাথে বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

ভাইরাল হওয়া ডিডিও’র শুরুতে এমপি প্রাণ গোপালকে বলতে শোনা যায়, ‘এ আসন আমি কাউকে দেব না, আমি পারি না আওয়ামী লীগের অফিসের তালা ভেঙে তোমাদের নিয়ে অফিস দখলে নিতে?’

এ সময় সেখানে উপস্থিত এক আওয়ামী লীগ নেতা বলেন ‘আপনি মেয়র সাহেবকে (মফিজুল ইসলাম) ওপেন করতে পারেন না?’ জবাবে ওই সাংসদ বলেন, ‘এখানে ওপেন ক্লোজ বড় কথা না। বড় কথা হচ্ছে, আমি বলতে পারি আমার দ্বারা তার কোনো ক্ষতি হবে না, বরং আরও অনেক উপকার করে ফেলেছি।’

সাবেক ওই মেয়রের এডিবির কাজের দুদকে অভিযোগের প্রসঙ্গে টেনে এমপি বলেন, ‘এডিবির কাজের বিষয়ে তদন্ত গিয়েছিল। বহু লোকে লিখছে, তোমার ( মফিজ) ঘরের লোক লিখছে। সেই জিনিসপত্র ( অভিযোগ) ছিঁড়ে ফেলা দেওয়া হয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন থেকে, অসুবিধার কি আছে।’

ওই কার্যালয়ে উপস্থিত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পৌর আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলেন, দুদকের অভিযোগ তদন্তের আগে ছিঁড়ে ফেলা কথাটি হয়তো অসাবধানতাবশত বলেছেন এমপি। এ আসন কাউকে দেবেন না তাও বলেছেন- একজন এমপি হিসেবে হয়তো এসব কথা বলা উচিত হয়নি তার।

এ বিষয়ে মফিজুল ইসলাম বলেন, ‘দাদা (এমপি) যখন কথা বলেন অনেকেই ভিডিও করেন, আমরা তো বাঁধা দিতে পারিনি।’

তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক বিরোধে কিছু লোক আমার বিরুদ্ধে দুদকে অভিযোগ করেছিল। দাদা (এমপি) এ বিষয়ে আমাকে সহযোগিতার কথা বলেছেন, এ কথাই পরে অনেকেই নেটে ছড়িয়ে দেন।’

এমপি ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত আজ সোমবার সাংবাদিকদের বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটি তিনি দেখেছেন। এটি এডিট করে তার বক্তব্য বিকৃত করা হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

সূত্র: আমাদের সময়
আইএ/ ৯ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button