জাতীয়

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতার ভারসাম্য প্রয়োজন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ৭ জানুয়ারি – বাংলাদেশে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতার ভারসাম্য ফিরিয়ে আনা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও সদ্য পদত্যাগী সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা।

শনিবার (৭ জানুয়ারি) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে বিএনপি ঘোষিত ১০ দফা আন্দোলনের বিষয়ে এক আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

রুমিন ফারহানা বলেন, ‘সকল ক্ষমতা এক ব্যক্তির হয়ে হয়ে গেছে। প্রধানমন্ত্রীর হাতে ক্ষমতা কেন্দ্রীভূত। রাষ্ট্রপতির কোনো ক্ষমতা নেই। তিনি কেবল জানাজা পড়েন আর ফিতা কাটেন। এর বাইরে তার আর কোনো কাজ নেই। এই ফিতা কাটা আর জানাজা পড়া থেকে রাষ্ট্রপতিকে বের করে নিয়ে আসব আমরা। যেখানে আমরা ক্ষমতার ভারসাম্য নিয়ে আসব। টানা দুবারের বেশি রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রী একই ব্যক্তি থাকতে পারবেন না।’

আওয়ামী লীগ সরকারের জাতির মধ্যে বিভক্তি সৃষ্টি করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বিগত সময়ে স্বাধীনতা সপক্ষ-বিপক্ষে, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ সামনে এনে জাতিকে দুই ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। আমরা জাতিকে বিভক্ত করা থেকে ফিরিয়ে আনব। আমরা সবােইকে দেখিয়ে নতুন বাংলাদেশ গড়ে তুলব।’

নির্বাচন নিয়ে রুমিন বলেন, যতদিন পর্যন্ত বাংলাদেশে দলীয় সরকারের অধীন অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন না হবে, ততদিন পর্যন্ত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীন ভোট হতে হবে।

বিএনপি ক্ষমতায় গেলে মানবাধিকার কমিশন গঠন করা হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে গত ১৫ বছরে যে গুম, খুন, নির্যাতন, হেফাজতে রেখে নির্যাতন, মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে, তার প্রতিটির বিচার করব।’

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক জিল্লুর রহমান জিল্লুর সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুল হক সাঈদ, সদস্য রফিক শিকদার, জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সদস্য হাফিজুর রহমান মোল্লা কচি প্রমুখ।

সূত্র: সময় টিভি
আইএ/ ৭ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button