ইউরোপ

পুতিনের ৩৬ ঘণ্টার যুদ্ধবিরতি ‘কূট’ কৌশল

কিয়েভ, ০৬ জানুয়ারি – ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি অর্থোডক্স ক্রিসমাসের সময়ে রাশিয়ার অস্ত্রবিরতির প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন।

তিনি বলছেন, যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব পশ্চিম দনবাসে ইউক্রেনের সৈন্যদের অগ্রযাত্রা থামিয়ে মস্কোর আরও সৈন্য মোতায়েনের কৌশল।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ৩৬ ঘণ্টার যুদ্ধবিরতির আদেশ দেন। শুক্রবার দিনের মধ্যভাগ থেকে শনিবার রাত পর্যন্ত এই যুদ্ধবিরতির মেয়াদ। রাশিয়ার অর্থোডক্স গির্জার প্রধানের যুদ্ধবিরতির আহ্বানের পর তিনি এই দেন।

এক বিবৃতিতে ক্রেমলিন পুতিনকে উদ্ধৃত করে বলেছে, রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রীর প্রতি আমার নির্দেশনা, ইউক্রেনে পার্টির লাইন অব কনট্যাক্টজুড়ে যুদ্ধবিরতি দেওয়া হোক।

এই আদেশে বলা হয়নি যে, যুদ্ধবিরতি রাশিয়ার আক্রমণাত্মক ও প্রতিরক্ষামূলক অভিযানের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নাকি তা বলা হয়নি। এটিও পরিষ্কার নয় যে ইউক্রেন যুদ্ধে ফিরে এলে রাশিয়া পাল্টা আঘাত করবে।

জেলেনস্কি বলেছেন, মস্কো বারবারই কিয়েভের শান্তি পরিকল্পনা অগ্রাহ্য করে ।

নিয়মিত রাত্রিকালীন ভিডিওতে জেলেনস্কি বলেন, ক্রিসমাসকে তারা এ পর্দা হিসবে ব্যবহার করতে চাইছে। দনবাসে আমাদের অগ্রযাত্রাকে শ্লথ করে দেওয়ার চেষ্টা চলছে। তারা সৈন্য, সরঞ্জামাদি নিয়ে আমাদের কাছাকাছি চলে আসবে ।

তিনি বলেন, এর মাধ্যমে তাদের কী হবে? শুধু তাদের ক্ষতির পরিমাণই বাড়বে।

জেলেনস্কি বলেন, পুরো বিশ্ব জানে, ক্রেমলিন যুদ্ধে বাধা দিয়ে নতুন করে শক্তি নিয়ে যুদ্ধ শুরু করতে চাইছে।

সূত্র: বাংলানিউজ
এম ইউ/০৬ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button