জাতীয়

সরকারের প্রত্যাশা পূরণে সর্বোচ্চ চেষ্টা করব

ঢাকা, ০৩ জানুয়ারি – চাকরি জীবনের শেষ প্রান্তে এসে অর্জন করা অভিজ্ঞতা, জ্ঞান, দক্ষতা নতুন পদে কাজে লাগিয়ে সরকারের প্রত্যাশা পূরণে সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন বলে জানিয়েছেন নতুন নিয়োগ পাওয়া মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন। তিনি জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। মঙ্গলবার (৩ জানুয়ারি) সকালে তাকে ২৪তম মন্ত্রিপরিষদ নিয়োগ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

তিনি বলেন, ‘দীর্ঘ চাকরি জীবনের যে অভিজ্ঞতা, জ্ঞান, দক্ষতা অর্জন করেছি; তা নতুন পদে কাজে লাগিয়ে সরকারের প্রত্যাশা পূরণে সর্বোচ্চ চেষ্টা করব।’

মাহবুব হোসেন বলেন, সকালে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে একটা আদেশ পেয়েছি, সেখানে আমাকে মন্ত্রিপরিসদ সচিব হিসেবে সরকার নিয়োগ দিয়েছে। এজন্য প্রশাসন ও প্রধানমন্ত্রীকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাই।

নির্বাচনী বছরে তার এ দায়িত্ব নেয়ার মধ্যে চ্যালেঞ্জ আছে বলে মনে করেন তিনি। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আমি কালকে (বুধবার) পরবর্তী দায়িত্ব নিয়ে চিন্তা করব। সামনে কী চ্যালেঞ্জ আছে, তা নিয়েও ভাববো। কিন্তু আজ আমি এখন পর্যন্ত এই মন্ত্রণালয়ের (জ্বালানি) সচিব। যে চ্যালেঞ্জ আসুক না কেন; সেটা আমাদের পরিপূর্ণ দক্ষতা দিয়ে মোকাবিলা করব। আমার তরফ থেকে এটুকু আমি বলতে পারি।

‘মন্ত্রিপরিষদ সচিব পদটি সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে সবচেয়ে সিনিয়র পজিশন। আমার প্রথম কাজটি হবে সব মন্ত্রণালয়, সংস্থা ও দফতরের সঙ্গে সমন্বয় করা। যেকোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার সবচেয়ে বড় শক্তি হবে এটি এবং সে কাজ করার ক্ষেত্রে আমি খুব আশাবাদি,’

জ্বালানিখাত বর্তমানে সংকটের মধ্যদিয়ে দিয়ে যাচ্ছে। পরবর্তীতে যে আসবে তার জন্য কি রকম চ্যালেঞ্জ হবে জানতে চাইলে মাহবুব হোসেন বলেন, পরবর্তীতে জ্বালানিতে যিনি আসছেন, তিনিও একজন দক্ষ কর্মকর্তা। পদোন্নতি পেয়ে তিনি এখানে আসছেন। তিনি একজন দক্ষ ও সুনাম অর্জনকারী কর্মকর্তা। আমি যাওয়ার আগে তাকে আমি ব্রিফিং দিয়ে যাব।

নতুন মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে জ্বালানিখাতে যে চ্যালেঞ্জগুলো তৈরি হয়েছে, তা ঠিকভাবে মোকাবিলা করতে পেরেছি। এখন যে কাজ হাতে নিয়েছি; তা নতুন সচিব এসে এগিয়ে নেবেন। তাহলে আমাদের জ্বালানি খাতের অবস্থান আরও সুদৃঢ় ও শক্ত হবে।

বৈশ্বিক কারণে জ্বালানি খাতে সমস্যা পাশাপাশি অর্থনীতিতে সংকট রয়েছে এসব বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসেবে সমন্বয় করা আপনার দায়িত্বের মধ্যে পড়বে কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি সেজন্যই বলেছি সমন্বয় করাটা আমার মূল দায়িত্ব। সকলের সঙ্গে সকল মন্ত্রণালয়, সংস্থার সঙ্গে সমন্বয় করা। আমাদের সরকারি কর্মকর্তাদের দায়িত্ব হচ্ছে যে সব আইন, বিধি, নীতিমালা আছে; সেগুলো সঠিকভাবে পরিচালনা করা। সেটা যাতে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করতে পারি, সে দিকে আমার নজরদারি রাখব।।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/০৩ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button