জাতীয়

মোবাশ্বের হোসেনের মরদেহ নেওয়া হচ্ছে স্থপতি ইনস্টিটিউটে

ঢাকা, ০২ জানুয়ারি – সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য বাংলাদেশ স্থপতি ইনস্টিটিউটের সভাপতি, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক স্থপতি মোবাশ্বের হোসেনের মরদেহ নেওয়া হচ্ছে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ স্থপতি ইনস্টিটিউট প্রাঙ্গণে।

সোমবার (২ জানুয়ারি) দুপুর ১২টা থেকে সাধারণ মানুষ বরেণ্য এ ব্যক্তিত্বের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন। জোহরের নামাজের পর তার জানাজা সম্পন্ন হবে।

রোববার দিনগত রাত দেড়টার দিকে রাজধানীর শ্যামলীতে বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন।

মোবাশ্বের হোসেনের মাল্টিপল অর্গান ফেইলিওর হয়েছিল। প্রথমে চোখের সমস্যা নিয়ে গত ৯ নভেম্বর রাজধানীর বেসরকারি স্পেশালাইজ হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। সেখানে তার হার্টের আগের সমস্যা আবারও দেখা দেয়। দুদিন আগে অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলেও শেষ পর্যন্ত তিনি না ফেরার দেশে পাড়ি জমান। এর আগে তাকে প্রথমে আইসিইউ এবং পরে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়।

স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থাপত্যে স্নাতক সম্পন্ন করেন। তিনি এসোকনসাল্ট লিমিটেডের প্রধান স্থপতি। বর্তমানে কমনওয়েলথ অ্যাসোসিয়েশন অফ আর্কিটেক্টস এবং বাংলাদেশ স্থপতি ইনস্টিটিউটের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন। তিনি আর্কিটেক্টস রিজিওনাল কাউন্সিল, এশিয়ার (আর্কেশিয়া) প্রেসিডেন্টও ছিলেন। নাগরিক আন্দোলনসহ বিভিন্ন বিষয়ে সোচ্চার ছিলেন।

স্থপতি হিসেবে মোবাশ্বের হোসেনের নির্মাণকাজের মধ্যে প্রশিকা ভবন, গ্রামীণ ব্যাংক ভবন ও চট্টগ্রাম রেলস্টেশন উল্লেখযোগ্য।

মোবাশ্বের হোসেন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। ১৯৭১ সালে তিনি সরাসরি মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন, ছিলেন ক্র্যাক প্লাটুনের সক্রিয় সদস্য।

এদিকে মোবাশ্বের হোসেনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। এক শোকবার্তায় তিনি মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবার, নিকটাত্মীয়, গুণগ্রাহী ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি গভীর সহমর্মিতা ও সমবেদনা জানান।

সূত্র: জাগোনিউজ
আইএ/ ০২ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button