জাতীয়

‘দি ইঞ্জিনিয়ার্স রত্নগর্ভা মা’ পদক পেলেন ৮০ নারী

ঢাকা, ০১ জানুয়ারি – ময়মনসিংহের শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রকৌশলী আফরোজার মা বেগম সুফিয়া আহমেদসহ এবার ‘দি ইঞ্জিনিয়ার্স-রত্নগর্ভা মা ২০২২’ পদক পেয়েছেন ৮০ নারী। যাদের সন্তানরা দেশের প্রকৌশল উন্নয়নে সর্বোচ্চ অবদান রাখছেন।

জাতীয় পেশাজীবি প্রতিষ্ঠান ইঞ্জিনিয়ার্স ইনিস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি)-এর উদ্যোগে রত্নগর্ভা প্রকৌশলীদের মায়েদের এ সম্মাননা দেয়া হয়।

রোববার বিকালে রাজধানীর রমনায় অবস্থিত আইইবি অডিটরিয়ামে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ সম্মাননা পদক, ক্রেস্ট এবং সনদ তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ও আইইবি’র প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুরসহ আইইবির নেতারা।

অনুষ্ঠানে ভার্চ্যুয়াল বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেন, মায়েদের যে অবদান তা স্বীকৃতি দিতে হবে। মায়েরা অবহেলিত হলে সমাজ রাষ্ট্র অবহেলিত হয়। নারীরা অবহেলিত হওয়ার জন্য অনেক সময় নিজেরাও দায়ী কারন জন্মের পর থেকেই নারীরা সব কিছু সহ্যকরে থাকে। মায়েদের স্বীকৃত প্রথম বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাই দিয়েছেন। সন্তান মায়ের পরিচয়ই বড় হতে পারে। বিধবা ভাতা, বয়স্ক মহিলা ভাতার ব্যবস্থা শেখ হাসিনা দিয়েছেন।

বিশেষ অতিথির বক্তেব্যে প্রকৌশলী মো. আবদুস সবুর বলেন, মায়ের তুলনা শুধু মা। মায়েদের অর্জন অতুলনীয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমন একজন মানুষ যিনি সব মায়েদের জন্য অনুকরণীয়। তিনি এমন একজন সফল মা যিনি দেশ পরিচালনার পাশাপাশি পরিবারের সন্তানদের সময় দেন। আমাদের দেশে প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলের নেত্রী, স্পিকার একজন মা। যারা নিজ নিজ কর্মে, পরিবারে সফল ও সমৃদ্ধ। মায়েদের যত্ন নিলে জাতি ও দেশ এগিয়ে যায়, উন্নয়ন স্থায়ী হয়।

আইইবির প্রেসিডেন্ট প্রকৌশলী মো. নূরুল হুদার সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন আইইবির সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী শাহাদাৎ হোসেন (শীবলু)।

আইইবির সহকারী সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী শেখ তাজুল ইসলাম তুহিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন আইইবির ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. নুরুজ্জামান, খন্দকার মঞ্জুর মোর্শেদ, মনজুরুল হক মঞ্জু, সহকারী সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম হাজারী, প্রতীক কুমার ঘোষ, রনক আহসান, আইইবির মহিলা কমিটির আহবায়ক ওয়াহিদা হুদা এবং সদস্য সচিব মাকসুদা আহমেদ চাঁদনি।

সূত্র: যুগান্তর
আইএ/ ০১ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button