আইন-আদালত

শেষ হয়েছে যেসব আলোচিত মামলার বিচার

ঢাকা, ০১ জানুয়ারি – আদালত মানেই অভিযোগ, পাল্টা অভিযোগ। দ্বন্দ্ব-সংঘাত, বাদী-বিবাদীর অভিযোগ আর বিচারকের সঠিক রায়। এর মাঝেই থাকে বিচারক, আইনজীবী, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কর্মতৎপরতা। এদের সমন্বয়েই আলোচিত মামলার সুরাহা হয়। এতে কেউ হন খুশি, কেউবা ক্ষুব্ধ।

২০২২ সালে বেশকিছু আলোচিত মামলার রায় এসেছে ঢাকার নিম্ন আদালত থেকে। এসবের মধ্যে ডিআইজি মিজান, ডিআইজি-প্রিজনস পার্থ গোপাল বণিক, বজলুর রশীদ, ডেসটিনির রফিকুল আমিনের মামলার রায় উল্লেখ্যযোগ্য। আরও ছিল—সোনালী ব্যাংকের অর্থ আত্মসাতের মামলা, হুমায়ুন আজাদ হত্যা মামলাসহ আলোচিত বেশকিছু মামলার রায়।

প্রশাসনের তিন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সাজা
ঘুষ লেনদেনের মামলায় বরখাস্ত হওয়া পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানকে তিন বছর এবং দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) বরখাস্ত পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরকে ৮ বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত। ২৩ ফেব্রুয়ারি ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক শেখ নাজমুল আলম এ রায় দেন।

এর মাস দেড়েক আগে বরখাস্ত হওয়া সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি—প্রিজনস) পার্থ গোপাল বণিককে দুদকের করা মামলায় ৮ বছর বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন একই আদালত। ৯ জানুয়ারি এ রায় ঘোষণা করেন আদালত।

জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের মামলায় কারা অধিদপ্তরের সাময়িক বরখাস্তকৃত উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি-প্রিজনস) বজলুর রশীদকে ৫ বছর কারাদণ্ড দেন আদালত। ২৩ অক্টোবর ঢাকার বিশেষ দায়রা জজ আদালত-৫ এর বিচারক মো. ইকবাল হোসেন এ রায় দেন।

ডেসটিনির মামলার রায়
ডেসটিনি ২০০০ লিমিটেডের ৪ হাজার ১১৯ কোটি ২৪ লাখ টাকা পাচারের মামলায় প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রফিকুল আমিনকে ১২ বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। প্রতিষ্ঠানটির প্রেসিডেন্ট সাবেক সেনাপ্রধান এম হারুন-অর-রশীদসহ ৪৫ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড এবং আসামিদের ২ হাজার ৩০০ কোটি টাকা অর্থদণ্ড দেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক শেখ নাজমুল আলম। গত ১২ মে এ রায় ঘোষণা করা হয়।

তিন মামলায় সোনালী ব্যাংকের সাবেক এমডিসহ ঊর্ধ্বতনদের সাজা
ঋণ জালিয়াতির মাধ্যমে সোনালী ব্যাংকের সাড়ে ২৭ লাখ টাকা আত্মসাতের দায়ে ২৫ মে ব্যাংকটির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ (এমডি) নয়জনকে পৃথক দুই ধারায় ১৭ বছর করে কারাদণ্ড দেন ঢাকার বিশেষ দায়রা জজ আদালত-৫ এর বিচারক মো. ইকবাল হোসেন। দণ্ডিত আসামিরা হলেন—ব্যাংকের সাবেক এমডি হুমায়ুন কবির, উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) মাইনুল হক, জিএম ননী গোপাল নাথ, ডিজিএম শেখ আলতাফ হোসেন ও সফিজ উদ্দিন আহমেদ, এজিএম কামরুল হোসেন খান ও সাইফুল হাসান এবং প্যারাগন নিট কম্পোজিট লিমিটেডের এমডি সাইফুল ইসলাম রাজা ও পরিচালক আব্দুল্লাহ আল মামুন।

এর মাস দুয়েক পর ২৪ জুলাই ঋণ জালিয়াতির মাধ্যমে সোনালী ব্যাংকের সোয়া কোটি টাকা আত্মসাতের দায়ে ব্যাংকটির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ (এমডি) নয়জনকে সাজা দেন একই আদালত।

বছরের শেষের দিকে এসে একই আদালত সোনালী ব্যাংকের ৫ কোটি ১৯ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলায় ব্যাংকের এমডি হুমায়ুন কবিরসহ নয়জনকে পৃথক দুই ধারায় ১৭ বছর কারাদণ্ড দেন।

সাবেক মেয়র নাজিম উদ্দিনের কারাদণ্ড
জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের মামলায় ঢাকার ধামরাই পৌরসভার সাবেক মেয়র দেওয়ান নাজিম উদ্দিনকে ৫ জুন চার বছরের কারাদণ্ড দেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৯ এর বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান। রায় ঘোষণার পর সাজা পরোয়ানা দিয়ে তাকে কারাগারে নেওয়া হয়।

গণপূর্তের মালি থেকে কোটিপতি সেলিমের দুই স্ত্রীর কারাদণ্ড
গণপূর্ত অধিদপ্তরের প্রাক্তন মালি সেলিম মোল্যার দ্বিতীয় স্ত্রী হাফিজা খানকে ২৪ মে ৫ বছরের কারাদণ্ড দেন ঢাকার বিশেষ দায়রা জজ আদালত-৫ এর বিচারক মো. ইকবাল হোসেন। এর আগে ১৩ ফেব্রুয়ারি একই আদালত সেলিম মোল্লার প্রথম স্ত্রী পারভীন আক্তারকে দুদকের মামলায় পৃথক দুই ধারায় তিন বছর করে ৬ বছরের কারাদণ্ড দেন। তারা কারাগারে আছেন।

আলোচিত বেশকিছু হত্যা মামলার বিচার শেষে রায় হয়েছে বিদায়ী বছরে। এতে বেশ কয়েকজন আসামির ফাঁসির রায় এসেছে।

হুমায়ুন আজাদ হত্যা
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও লেখক অধ্যাপক হুমায়ুন আজাদ হত্যা মামলার রায় এসেছে ১৮ বছর পর। রায়ে ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড দেন ঢাকার চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালত। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন—মিজানুর রহমান ওরফে মিনহাজ, আনোয়ারুল আলম ওরফে ভাগ্নে শহীদ, সালেহীন ওরফে সালাহউদ্দিন ও নূর মোহাম্মদ ওরফে শামীম।

জাকিয়া হত্যা
গোপালগঞ্জে জাকিয়া বেগম নামের এক গৃহবধূকে খুনের মামলায় ২৪ ফেব্রুয়ারি তার স্বামীসহ চারজনকে ফাঁসির আদেশ দেন ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক জাকির হোসেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন—জাকিয়ার স্বামী মোর্শেদায়ান নিশান, নিশানের ভাই এহসান সুশান, ভগ্নিপতি হাসান শেখ ও ম্যানেজার আনিছুর রহমান।

ব্যবসায়ী উজ্জল হত্যা
৯ বছরের বেশি সময় আগে ময়মনসিংহের ধোবাউড়ার বতিহালা গ্রামের ব্যবসায়ী মো. উজ্জল মিয়া হত্যা মামলায় ১৪ জুন তিনজনকে মৃত্যুদণ্ড এবং ছয়জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৩ এর বিচারক মনির কামাল। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন—নওশাদ, শাহাবুদ্দিন ও সবুজ। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন—মরম, মহিম, কারিম, জসিম, মিয়া হোসেন ও জালাল উদ্দিন। প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যায় স্বামীর ফাঁসি
১৭ বছর আগে রাজধানীর ডেমরায় যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যার মামলায় তার স্বামী মো. আমিন ওরফে ফকির আমিনকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। ৩১ জুলাই ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৩ এর বিচারক এএম জুলফিকার হায়াত এ রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত এ আসামি ডেমরার বাগানবাড়ির গোপীবাগের ৮৩/১ এর মৃত ফকির চানের ছেলে।

যৌতুকের জন্য স্ত্রী হত্যায় মৃত্যুদণ্ড
রাজধানীর হাজারীবাগে যৌতুকের দাবিতে মারুফা বেগমকে হত্যা মামলায় স্বামী সুজন মিয়াকে মৃত্যুদণ্ড দেন আদালত। ৩১ আগস্ট ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৫ এর বিচারক বেগম সামছুন্নাহার এ আদেশ দেন।

গার্মেন্টস কর্মী হত্যায় চারজনের ফাঁসি
পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে খুন হন আশুলিয়ার গার্মেন্ট অপারেটর মো. তানিম। এ মামলায় ১৬ ফেব্রুয়ারি চারজনকে ফাঁসির আদেশ দেন ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ইসমত আরা। দণ্ডিতরা হলেন— গামেন্ট কর্মী সোহেল রানা, ফরহাদ হোসেন, মো. আশিকুর রহমান ও মো. নজরুল ইসলাম।

ওয়াসিম হত্যায় চারজনের মৃত্যুদণ্ড
সাত বছর আগে ঢাকার কেরানীগঞ্জ মডেল থানাধীন আগানগর বাঁশপট্টি এলাকায় ওয়াসিম নামের এক ব্যক্তিকে জবাই করে হত্যার দায়ে ১০ ফেব্রুয়ারি ঢাকার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-৫ম আদালতের বিচারক ফাইজুন্নেছা চারজনকে মৃত্যুদণ্ড দেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন—আব্দুল বাতেন, জাহাঙ্গীর আলম ওরফে আলম, পলক রহমান ওরফে ডেঞ্জার সাগর ও পাপ্পু।

সাবরিনাদের করোনার রিপোর্ট জালিয়াতির মামলা
দেশজুড়ে আলোচিত ছিল ডা. সাবরিনা চৌধুরীদের করোনা রিপোর্ট জালিয়াতির মামলার রায়। তাদের সাজাও দিয়েছেন আদালত। করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা নিয়ে প্রতারণার মামলায় জেকেজি হেলথ কেয়ারের শীর্ষ কর্মকর্তা ডা. সাবরিনা চৌধুরী ও তার স্বামী আরিফুল হক চৌধুরীসহ আট আসামিকে পৃথক তিন ধারায় ১১ বছর করে কারাদণ্ড দেন আদালত। ১৯ জুলাই আলোচিত এ মামলার রায় দেন ঢাকার অ্যাডিশনাল চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন।

এনু-রুপনের মামলা

এনু-রুপনের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলা হলেও অর্থপাচারের একটি মামলার বিচার শেষে রায় হয়েছে। রায়ে এনু-রুপনসহ ১১ জনকে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। রাজধানীর ওয়ারী থানার মানিলন্ডারিং আইনের মামলায় বহিষ্কৃত আওয়ামী লীগ নেতা এনামুল হক ভূঁইয়া ওরফে এনু, রুপন ভূঁইয়াসহ ১১ জনকে ৭ বছর করে কারাদণ্ড দেন আদালত। কারাদণ্ডের পাশাপাশি তাদের ৪ কোটি টাকা জরিমানা করা হয়। ২৫ এপ্রিল ঢাকার বিশেষ দায়রা জজ আদালত-৫ এর বিচারক ইকবাল হোসেন আলোচিত এ দুই ভাইসহ ১১ জনের কারাদণ্ডের রায় ঘোষণা করেন।

হোসেনি দালানে বোমা হামলা
পবিত্র আশুরা উপলক্ষে তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতিকালে পুরনো ঢাকার হোসনি দালানে বোমা হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় ৮ আসামির মধ্যে দুজনের সাজার রায় আসে। অপর ছয় আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তারা খালাস পান। ১৫ মার্চ ঢাকার সন্ত্রাস দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি হলেন—আরমান ওরফে মনির ও কবির হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আসিফ। খালাস পাওয়া ছয় আসামি হলেন—আবু সাঈদ ওরফে সালমান, রুবেল ইসলাম ওরফে সুমন ওরফে সজীব, চান মিয়া, ওমর ফারুক, হাফেজ আহসান উল্লাহ মাহমুদ ও শাহজালাল।

বিমানের দুই কর্মচারীসহ চারজনের কারাদণ্ড
প্রায় চার বছর আগে হজরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সোয়া ৯ কেজি স্বর্ণ উদ্ধারের মামলায় বিমানের দুই কর্মচারীসহ চারজনকে ১২ বছর করে কারাদণ্ড দেন ট্রাইব্যুনাল। ১২ জানুয়ারি ঢাকার বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-৩ এর বিচারক বিলকিছ আক্তার আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন—বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ফ্লাইট ক্যাটারিং সেন্টারের (বিএফসিসি) পেন্ট্রি ম্যান খন্দকার রুহুল আমিন ও শাহিনুর ইসলাম এবং স্বর্ণ চোরাচালান চক্রের সদস্য ইফতারুল আলম সরকার ও রিয়াজ ওরফে আমজাদ।

বেশ কয়েকজন আলোচিত বক্তি এবার বিচারের মুখোমুখি হয়েছেন।

স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজিসহ ৬ জনের বিচার শুরু
দুদকের মামলায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে বিচার শুরু হয়। গত ১২ জুন ঢাকার বিশেষ আদালত-৬ এর বিচারক আল আসাদ মো. আসিফুজ্জামানের আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠনের আদেশ দেন। বিচার শুরু হওয়া অপর ৫ আসামি হলেন—রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক ডা. আমিনুল হাসান, উপ-পরিচালক ডা. মো. ইউনুস আলী, সহকারী পরিচালক ডা. মো. শফিউর রহমান এবং গবেষণা কর্মকর্তা ডা. মো. দিদারুল ইসলাম।

ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার বিচার শুরু
সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার (এস কে সিনহা) বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগে করা মামলায় সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা বিচারের মুখোমুখি হয়েছেন। গত ৬ এপ্রিল নাজমুল হুদার অব্যাহতির আবেদন নাকচ করে চার্জ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৯ এর বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান।

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের মালেকের বিচার শুরু
অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আলোচিত গাড়িচালক আব্দুল মালেক ও তার স্ত্রী নার্গিস বেগমের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন আদালত। আব্দুল মালেকের অবৈধ সম্পদের আরও একটি মামলায় চার্জ গঠন করে বিচার শুরু হয়। ১১ মে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬ এর বিচারক আল আসাদ মো. আসিফুজ্জামানের আদালত আসামিদের অব্যাহতির আবেদন নাকচ করে চার্জ গঠনের আদেশ দেন। মামলা দুটি বর্তমানে সাক্ষ্য গ্রহণের পর্যায়ে আছে।

সূত্র: রাইজিংবিডি
আইএ/ ০১ জানুয়ারি ২০২৩

Back to top button