জাতীয়

হারিয়ে গেলেন অনেক আলোকিত মানুষ

ঢাকা, ৩১ ডিসেম্বর – বিদায়ী বছরে আমাদের মাঝ থেকে হারিয়ে গেছেন আলোকিত অনেক মানুষ। সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাঁদের ছিল সরব উপস্থিতি। কবি, সাহিত্যিক, গবেষক, অর্থনীতিবিদ, বিচারপতি, সাংবাদিক, চিকিৎসক, বিজ্ঞানী, বুদ্ধিজীবীসহ অনেকে আমাদের বিষাদের অন্ধকারে ফেলে চলে গেছেন চিরদিনের জন্য। তবে রেখে গেছেন তাঁদের মূল্যবান কর্ম। জাতীয় ব্যক্তিত্বদের হারিয়ে তৈরি হয়েছে অপূরণীয় শূন্যতা। এ বছর আমাদের মাঝ থেকে হারিয়ে গেছেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী, বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ আকবর আলি খান, একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক তোয়াব খান, সাবেক অর্থমন্ত্রী ও ভাষাসৈনিক আবুল মাল আবদুল মুহিত, প্রসিদ্ধ লেখক ও ঔপন্যাসিক দিলারা হাশেম, জনপ্রিয় মাসুদ রানা সিরিজের স্রষ্টা কাজী আনোয়ার হোসেন, কিংবদন্তি গীতিকার, চলচ্চিত্র পরিচালক ও প্রযোজক গাজী মাজহারুল আনোয়ার, সিনিয়র সাংবাদিক ও খ্যাতিমান কলামিস্ট পীর হাবিবুর রহমান, প্রসিদ্ধ গীতিকার ও সাংবাদিক কে জি মুস্তাফাসহ অনেক গুণী মানুষ।

বছরের শুরুতে জানুয়ারিতে মৃত্যুবরণ করেন সেবা প্রকাশনীর কর্ণধার ও জনপ্রিয় মাসুদ রানা সিরিজের স্রষ্টা কাজী আনোয়ার হোসেন, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের সবচেয়ে প্রবীণ আইনবিদ ও সাবেক বিচারপতি তোফাজ্জেল হোসেন (টি এইচ) খান, জাতীয় জাদুঘরের সাবেক মহাপরিচালক, বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী অধ্যাপক মাহমুদুল হক, সাবেক সচিব, নদীরক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের সভাপতি এ এস এম আলী কবীর।

ফেব্রুয়ারিতে মারা যান বাংলাদেশ প্রতিদিনের নির্বাহী সম্পাদক, সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট পীর হাবিবুর রহমান, জনপ্রিয় গীতিকবি ও জ্যোতিষী কাওসার আহমেদ চৌধুরী, সাবেক সংসদ সদস্য ও কবি কাজী রোজী, বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সাবেক খতিব মাওলানা মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য আবুল হাসেম। মার্চে মারা যান প্রসিদ্ধ লেখক ও ঔপন্যাসিক দিলারা হাশেম, ‘ছুটির ঘণ্টা’ সিনেমার পরিচালক খ্যাতিমান চলচ্চিত্র নির্মাতা আজিজুর রহমান, সাবেক রাষ্ট্রপতি ও প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদ, সিলেট-৬ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দ মকবুল হোসেন (লেচু মিয়া)।
এপ্রিলে মারা যান সাবেক অর্থমন্ত্রী, লেখক ও ভাষাসৈনিক আবুল মাল আবদুল মুহিত, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচিত মেয়র এম এ মান্নান, দেশবরেণ্য আবৃত্তিশিল্পী হাসান আরিফ, জাতীয় দলের ক্রিকেটার মোশাররফ হোসেন রুবেল, জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার সামিউর রহমান।

মে মাসে মারা যান ভাষা আন্দোলনের স্মরণীয় গান ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো’র রচয়িতা বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী, সত্তরের দশকে আলোচিত অ্যাপলো-১১ মহাকাশযানের গুরুত্বপূর্ণ রাডার নকশা প্রণয়ন ও কারিগরি কার্যক্রমে যুক্ত থাকা খ্যাতিমান বাংলাদেশি বিজ্ঞানী রফিক উদ্দিন, প্রখ্যাত গীতিকার ও সাংবাদিক কে জি মুস্তাফা, টাঙ্গাইল-৬ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও প্রতিমন্ত্রী গৌতম চক্রবর্তী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য জিকরুল আহমাদ। জুলাইয়ে মারা যান একুশে পদকপ্রাপ্ত ভাষাসৈনিক ও সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি কাজী এবাদুল হক, জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়া, রংপুরের হারাগাছের বিশিষ্ট শিল্পপতি ও সাবেক এমপি করিম উদ্দিন ভরসা, দৈনিক দেশ রূপান্তরের সম্পাদক অমিত হাবিব, ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেত্রী শর্মিলী আহমেদ, বাংলা গানের কিংবদন্তি সুরকার ও সংগীত পরিচালক আলম খান, প্রখ্যাত সংগীত ব্যক্তিত্ব খুরশিদ আলম খান, জয়পুরহাট-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আব্বাস আলী ম-ল, সংরক্ষিত নারী আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য খোরশেদ আরা হক, সাবেক সংসদ সদস্য শাহানা রহমান রানী। আগস্টে মারা যান সাবেক নির্বাচন কমিশনার, কবি ও শিশু সাহিত্যিক মাহবুব তালুকদার, বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, সাবেক গণপরিষদ সদস্য এম. আবু ছালেহ, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রদানেন্দু বিকাশ চাকমা। সেপ্টেম্বরে মারা যান আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য জাতীয় সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা, বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ও শিক্ষাবিদ আকবর আলি খান, সুপ্রিম কোর্টের হাই কোর্ট বিভাগের সাবেক বিচারপতি সৈয়দ আমিরুল ইসলাম, কিংবদন্তি গীতিকার, চলচ্চিত্র পরিচালক ও প্রযোজক গাজী মাজহারুল আনোয়ার, একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক, কলামিস্ট, ভাষাসৈনিক ও রাজনীতিক রণেশ মৈত্র, ঢাকা সিটি করপোরেশনের প্রথম মেয়র ব্যারিস্টার আবুল হাসনাত, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক উপপ্রধানমন্ত্রী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, ময়মনসিংহ-১০ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য গিয়াস উদ্দিন আহমেদ। অক্টোবরে মারা যান একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক তোয়াব খান, একুশে পদকপ্রাপ্ত জনপ্রিয় নাট্যকার ও অভিনেতা মাসুম আজিজ, সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচিত সংসদ সদস্য শেখ এ্যানী রহমান, চলচ্চিত্র প্রযোজক এবং পরিচালক আজিজুর রহমান বুলি।

নভেম্বরে মৃত্যুবরণ করেছেন প্রখ্যাত শিশুসাহিত্যিক আলী ইমাম, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি মোহাম্মদ গোলাম রাব্বানী, কণ্ঠশিল্পী আকবর আলী গাজী, একুশে পদকপ্রাপ্ত নৃত্যশিল্পী গোলাম মোস্তফা খান, সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও চট্টগ্রাম-১৫ আসনের সংসদ সদস্য জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক সংসদ সদস্য মসিউর রহমান, বরিশাল-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য শাহ মোহাম্মদ আবুল হোসাইন, বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য শাহজাহান খান, বীরবিক্রম খেতাবপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক সচিব শাহজাহান সিদ্দিকীসহ অনেকে। চলতি ডিসেম্বরে মারা যান জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক উপদেষ্টা ও সংসদ সদস্য ডা. এস এ মালেক, সাবেক মন্ত্রী ও কুমিল্লা-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ বি এম গোলাম মোস্তফা, বগুড়া জেলা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য এস এম ফারুক, বীরউত্তম খেতাবপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুল আলম।

সূত্র: বিডি-প্রতিদিন
আইএ/ ৩১ ডিসেম্বর ২০২২

Back to top button