এশিয়া

পাম তেল রপ্তানি সীমিত করবে ইন্দোনেশিয়া

বোর্নিও, ৩০ ডিসেম্বর – দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে ২০২৩ সালের ১ জানুয়ারি থেকে পাম তেলের জন্য রপ্তানি নিয়ম কঠোর করবে ইন্দোনেশিয়ার সরকার।

বার্তাসংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, বর্তমানে পাম তেল উৎপাদনকারীরা ইন্দোনেশিয়ার অভ্যন্তরীণ বাজারে যে পরিমাণ তেল বিক্রি করে থাকেন তার আট গুণ রপ্তানি করতে পারেন। কিন্তু নতুন নিয়ম অনুযায়ী এটি ছয় গুণ করা হবে। অথাৎ অভ্যন্তরীণ বাজারে ১ টন তেল বিক্রির বিপরীতে ৬ টন রপ্তানি করতে পারবেন উৎপাদনকারীরা।

ইন্দোনেশিয়ারসামুদ্রিক ও বিনিয়োগ বিষয়ক সমন্বয়কারী মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা সেপ্তিয়ান হারিও সেতিও বলেছেন, অভ্যন্তরীণ সরবরাহ সুরক্ষিত করতে, বিশেষ করে বছরের প্রথম চার মাসের সরবরাহ ঠিক রাখতে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সেতিও জানিয়েছেন, অভ্যন্তরীণ বাজার পরিস্থিতি, ভোজ্য তেলের সরবরাহ ও দাম বিবেচনা করে পর্যায়ক্রমে রপ্তানির অনুপাতটি পর্যায়ক্রমে বৃদ্ধি করা হবে।

এরআগে এই বছরের শুরুতে পাম তেলের দাম নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় পাম তেল রপ্তানিতে বিধিনিষেধ আরোপ করেছিল দেশটি। এরফলে বিশ্ব বাজারে পাম তেলের সংকট দেখা দেয় এবং দামও বেড়ে যায়। তবে এই পদক্ষেপের ফলে ইন্দোনেশিয়ার অভন্তরীণ বাজারে স্বস্তি ফিরে আসে।

গত সপ্তাহে এবিষয়ে সরকারের সাথে এক বৈঠকে বসে ইন্দোনেশিয়ান পাম অয়েল অ্যাসোসিয়েশন (গ্যাপকি)।

সেসময় গ্যাপকি-এর সেক্রেটারি জেনারেল এডি মার্টোনো বলেছিলেন, রান্নার তেল সরবরাহ, সরকারের বায়োডিজেল কর্মসূচির সাথে সম্পর্কিত এবং প্রথম ত্রৈমাসিকে কম পাম তেল উৎপাদনের প্রত্যাশার বিষয়ে এখনও উদ্বেগ রয়েছে। ফলে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে বাধ্যতামূলক পাম তেলের উপাদান ৩৫ শতাংশে উন্নীত করার পরিকল্পনা করছে।

মার্টোনো বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল মুসলিম দেশটিও ২০২৩ সালের মার্চ মাসে রমজান উদযাপন করবে, তখন রান্নার তেল সহ খাদ্যের চাহিদা বাড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/৩০ ডিসেম্বর ২০২২

Back to top button