দক্ষিণ এশিয়া

কন্যাশিশুর অনুপাত কমায় ভারতের একাধিক রাজ্যে চিঠি

নয়াদিল্লি, ২৯ ডিসেম্বর – ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্যে গত তিন বছরের ছেলে ও কন্যাশিশুর জন্মকালীন অনুপাতের হার অনেকটাই কমেছে। এ বিষয়ে সতর্ক করে আটটি রাজ্যকে চিঠি পাঠিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

কন্যাভ্রূণ হত্যা বৃদ্ধির কারণেই আনুপাতিক হারে অবনতি হয়ে থাকতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে ওই চিঠিতে।

আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, স্যাম্পল রেজিস্ট্রেশন সার্ভের (এসআরএস) রিপোর্টে ২০১৮-২০ সালের পরিসংখ্যানে অবনতির চিত্র বিষয়টি উঠে এসেছে।

এ বিষয়ে গত ২৭ ডিসেম্বর পশ্চিমবঙ্গ, মধ্যপ্রদেশ, তেলঙ্গানা, ওড়িশা, অন্ধ্রপ্রদেশ, আসাম, দিল্লি ও মহারাষ্ট্রের মুখ্যসচিব ও স্বাস্থ্যসচিবকেও উদ্বেগ প্রকাশ করে চিঠি পাঠিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যসচিব রাজেশ ভূষণ।

সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, সামগ্রিকভাবে ভারতে ছেলে ও মেয়েশিশুর অনুপাতের হারে উন্নতি হয়েছে। ২০১৬ সালে প্রতি এক হাজার ছেলের বিপরীতে কন্যা জন্মানোর আনুপাতিক হার ছিল ৮৯৯। পরের বছর তা বেড়ে দাঁড়ায় ৯০৪ এবং ২০২০ সালে ৯০৭। কিন্তু একই সময়ে কিছু কিছু রাজ্যে এই ব্যবধান বেড়ে যায়।

চিঠিতে রাজ্যগুলোকে পিসি-পিএনডিটি বা প্রি-কনসেপশন অ্যান্ড প্রি-নেটাল ডায়গনস্টিক টেকনিকস আইন নিয়ে কড়া অবস্থান নিতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে। যাতে দম্পতিদের গর্ভস্থ ভ্রূণের লিঙ্গ সম্পর্কে চিকিৎসক বা টেকনিশিয়ানরা কিছু জানাতে না পারেন।

সূত্র: বণিক বার্তা
আইএ/ ২৯ ডিসেম্বর ২০২২

Back to top button