উত্তর আমেরিকা

মার্কিন প্রেসিডেন্ট হবেন এলন মাস্ক!

ওয়াশিংটন, ২৮ ডিসেম্বর – রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ অনুচর ও দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ আগামী বছর ফ্রান্স ও জার্মানির মধ্যে যুদ্ধ বাঁধবে বলে ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন। একই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে গৃহযুদ্ধের পর বিশ্বের দ্বিতীয় শীর্ষ ধনী ও টেসলা প্রধান এলন মাস্ক দেশটির নতুন প্রেসিডেন্ট হবেন বলে মন্তব্য করেন তিনি।

পুতিনের উপদেষ্টা নিরাপত্তা পরিষদের উপ-প্রধান মেদভেদেভ, ২০০৮ থেকে ২০১২ সালে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ছিলেন। পুতিন তখন প্রধানমন্ত্রীর পদে ছিলেন। বর্তমানে ক্রেমলিনে তার নিয়ন্ত্রণ দিন দিন আরও শক্ত হচ্ছে, সোমবার তিনি সামরিক খাত তত্ত্বাবধানে দায়িত্বে থাকা পরিষদেও পুতিনের সহকারী হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন।

মঙ্গলবার নিজের টুইটার ও টেলিগ্রাম অ্যাকাউন্টে তিনি যেসব ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন, তাতে ২০২৩ সালে তিনি যুক্তরাজ্যকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে ফের যুক্ত হওয়ার পূর্বাভাস দিয়েছেন। তবে যুক্তরাজ্য যুক্ত হওয়ার পর ইউরোপের এই জোটটি ভেঙে যাবে বলেও ধারণা তার।

এছাড়াও আগামী বছর তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি দেড়শ ডলারে পৌঁছাবে বলেও ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন সাবেক এই রুশ প্রেসিডেন্ট।

এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে আবির্ভূত হবেন মেদভেদেভের এমন পরামর্শের জবাব দিয়েছেন টেসলা ও টুইটারের প্রধান এলন মাস্ক। পাল্টা টুইটে মেদভেদেভের ভবিষ্যদ্বাণীকে ‘এপিক থ্রেড’ অ্যাখ্যা দিলেও মেদভেদেভের বেশকিছু ভবিষ্যদ্বাণীর সমালোচনাও করেছেন।

মাস্ক এর আগে ইউক্রেনকে রাশিয়ার দখলে যাওয়া ভূখণ্ডকে স্বীকৃতি দিয়ে শান্তি প্রস্তাব মেনে নিতে অনুরোধ করেছিলেন। তার ওই অবস্থান মেদভেদেভের প্রশংসাও পেয়েছিল।

সাবেক এই রুশ প্রেসিডেন্টকে কিছুদিন আগেও পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলো উদারপন্থি বলে আসছিল। কিন্তু চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়া ইউক্রেইনে সেনা পাঠানোর পর থেকে মেদভেদেভকে পুতিনের চেয়েও বেশি যুদ্ধবাজ মনে হচ্ছে। গত সপ্তাহেই তিনি বিরল এক সফরে চীনে গিয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে পররাষ্ট্রনীতি নিয়ে বৈঠক করেছেন।

ভবিষ্যদ্বাণী এরই মধ্যে পশ্চিমা দেশগুলোর গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শোরগোল সৃষ্টি করেছে, অনেকে সাবেক রুশ প্রেসিডেন্টের গণক হিসেবে আবির্ভাব এবং তার করা ভবিষ্যদ্বাণী নিয়ে কৌতুকও করছেন।

ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ভ্লাদিমির পাস্তুখভ বলেছেন, মেদভেদেভের সদ্য স্পষ্টভাষী জনসাধারণের ব্যক্তিত্ব পুতিনের অনুগ্রহ খুঁজে পেয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

পাস্তুখভ তার নিজের টেলিগ্রামে লিখেছেন, মেদভেদেভের টেলিগ্রাম পোস্টগুলোতে বোঝা যায়, পুতিন প্রকৃতপক্ষে একজন প্রশংসক খুঁজে পেয়েছে।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/২৮ ডিসেম্বর ২০২২

Back to top button