জাতীয়

মেট্রো রেলের উদ্বোধন কাল, পরশু থেকে যাত্রী পরিবহন

ঢাকা, ২৭ ডিসেম্বর – মেট্রোর যুগে পা দিচ্ছে বাংলাদেশ। আগামীকাল বুধবার উদ্বোধন হচ্ছে দেশের প্রথম মেট্রো রেলের। প্রায় সবই প্রস্তুত—মাঠ, মঞ্চ ও মেট্রো। এখন শুধু পতাকা ওড়ানোর পালা।

মেট্রোর উদ্বোধন ঘিরে কাল সকাল ১১টায় উত্তরার ১৫ নম্বর সেক্টরের উত্তরা পার্ক মাঠে জনসমাবেশে অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই জনসমাবেশে ভাষণ শেষে মেট্রো রেলের উদ্বোধন ঘোষণা করবেন তিনি। এরপর স্টেশনে এসে কাটবেন ট্রেনের টিকিট, ওড়াবেন পতাকা, চড়বেন ট্রেনে। প্রথম যাত্রী নিয়ে যাত্রা করবে দেশের প্রথম মেট্রো ট্রেন।

পরদিন বৃহস্পতিবার থেকে সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে মেট্রো রেল। তবে প্রাথমিকভাবে সকাল ৮টা থেকে ১২টা পর্যন্ত ট্রেন চলবে। যাত্রী বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ট্রেনের সময় বাড়ানো হবে। উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১১.৭৩ কিলোমিটার পথের মধ্যে শুরু, শেষসহ মোট ৯টি স্টেশন হয়েছে। তবে শুরুর দিন থেকে সব স্টেশনে ট্রেন থামবে না। উত্তরা উত্তর, পল্লবী ও আগারগাঁও স্টেশন থেকে যাত্রীরা ট্রেনে ওঠানামা করতে পারবে। প্রায় ১২ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে সময় লাগবে ১৬ মিনিট।

জানতে চাইলে ঢাকা মাস ট্রানজিট কম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) সচিব মোহাম্মদ আবদুর রউফ বলেন, উদ্বোধন ঘিরে ধারাবাহিকভাবে সব কাজ করা হয়েছে। নিরাপত্তার সার্বিক বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আশা করছি অনুষ্ঠান সুন্দরভাবে সম্পন্ন হবে। এখন শুধু সেই মাহেন্দ্রক্ষণের অপেক্ষা।

উদ্বোধনসংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে এবং মেট্রো রেল সম্পর্কে আজ আগারগাঁও স্টেশনে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলবেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

মেট্রো রেল চালানোর জন্য এখন পর্যন্ত ২৪ জন চালক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ছয়জন নারী রয়েছেন। উদ্বোধনী দিন প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে যাত্রা শুরু করা ট্রেনের চালকের আসনে থাকতে পারেন একজন নারী। চালকদের প্রশিক্ষণ শেষ হয়েছে।

দুটি পথে শাটল বাস
উত্তরা থেকে কমলাপুর পর্যন্ত মেট্রো রেলের মূল পথ হলেও আপাতত এটি চলবে আগারগাঁও পর্যন্ত। এ জন্য দুই প্রান্তে নামা যাত্রীদের শাটল বাস সেবা দেবে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন (বিআরটিসি)। আগারগাঁও ও উত্তরা থেকে দুটি পথে মেট্রো রেলের যাত্রী পরিবহনের জন্য বিআরটিসির ৫০টি বাস চলবে। একটি পথে আগারগাঁও থেকে ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ, গুলিস্তান হয়ে মতিঝিল যাবে। একইভাবে মতিঝিল থেকে গুলিস্তান, শাহবাগ, কারওয়ান বাজার, ফার্মগেট হয়ে আগারগাঁও পর্যন্ত আসা যাবে। আর দিয়াবাড়ী থেকে উত্তরার হাউস বিল্ডিং বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত আসা-যাওয়া করবে বিআরটিসির আরেক পথের বাস।

ভাড়া কমানোর দাবি
প্রতি কিলোমিটারে পাঁচ টাকা ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে। যাত্রীপ্রতি সর্বনিম্ন ভাড়া ২০ টাকা। উত্তরা উত্তর স্টেশন থেকে কমলাপুর স্টেশন পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার দূরত্বের জন্য সর্বোচ্চ ভাড়া যাত্রীপ্রতি ১০০ টাকা ঠিক করা হয়েছে।

আপাতত উত্তরা উত্তর স্টেশন থেকে আগারগাঁও স্টেশনের ভাড়া হবে ৬০ টাকা। উত্তরা উত্তর স্টেশন থেকে উত্তরা সেন্টার (মধ্য) ও উত্তরা দক্ষিণ স্টেশনের ভাড়া ২০ টাকা। উত্তরা উত্তর থেকে পল্লবী ও মিরপুর-১১ স্টেশনের ভাড়া ৩০ টাকা, মিরপুর-১০ ও কাজীপাড়া স্টেশনের ভাড়া ৪০ টাকা এবং শেওড়াপাড়া স্টেশনের ভাড়া ৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এই ভাড়া অর্ধেক করার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি। সংগঠনটির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, ‘এত বেশি ভাড়া থাকলে মেট্রো রেল সবার জন্য হবে না। মেট্রো রেলকে প্রকৃত গণপরিবহন করতে হলে ভাড়া অর্ধেক করতে হবে। ’

মেট্রো রেলের ভাড়া ৩০ শতাংশ কমানোর পরামর্শ দিয়েছে ইনস্টিটিউট ফর প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (আইপিডি)। গতকাল সোমবার ‘রাজধানীর টেকসই পরিকল্পনায় মেট্রো রেল : প্রেক্ষিত ও করণীয়’ শীর্ষক এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে এ পরামর্শ দেয় আইপিডি।

আইপিডির নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক আদিল মুহাম্মদ খান বলেন, ‘মেট্রোর যে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে, সেখান থেকে ৩০ শতাংশ ভাড়া কমানো উচিত। ভাড়া কমানো ছাড়াও শিক্ষার্থীদের জন্য অর্ধেক ভাড়া নির্ধারণ, পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের ভাড়া মওকুফ করা দরকার। ’

সূত্র: কালের কণ্ঠ
এম ইউ/২৭ ডিসেম্বর ২০২২

Back to top button