ব্যবসা

কার্ডে বিদেশি মুদ্রায় লেনদেন বেড়েছে ১৬১ শতাংশ

ঢাকা, ২২ ডিসেম্বর – দেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে লেনদেন বেড়েছে। একই সঙ্গে বেড়েছে ব্যাংক কার্ডের মাধ্যমে বিদেশি মুদ্রার লেনদেন। এক বছরের ব্যবধানে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে লেনদেন বেড়েছে ২১ দশমিক ২২ শতাংশ। একই সময়ে ব্যাংক কার্ডের মাধ্যমে বিদেশি মুদ্রায় দেনলেন বেড়েছে ১৬১ দশমিক ৪৫ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি ২০২২ সালের অক্টোবর মাসে ব্যাংক কার্ডের মাধ্যমে ৬০৫ কোটি টাকা সমমানের বিদেশি মুদ্রার লেনদেন হয়েছে। ২০২১ সালের একই সময়ের (অক্টোবর) তুলনায় যা ১৬১ দশমিক ৪৫ শতাংশ বেশি। ২০২১ সালের অক্টোবরে কার্ডে বিদেশি মুদ্রায় লেনদেন হয় ২৩১ কোটি ৪০ লাখ টাকার। সে হিসাবে এক বছরের ব্যবধানে বিদেশি মুদ্রায় কার্ডে লেনদেন বেড়েছে ৩৭৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা।

এদিকে, চলতি বছরের অক্টোবরে কার্ডে দেশি মুদ্রায় লেনদেনের পরিমাণ প্রায় ৩৭ হাজার ৫৩০ কোটি ২০ লাখ টাকা। এটি গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১২ হাজার ২৬০ কোটি ৪০ লাখ টাকা বেশি। আলোচ্য সময়ে দেশি ও বিদেশি মুদ্রায় কার্ডে মোট লেনদেন হয়েছে ৩৮ হাজার ১৩৫ কোটি ২০ লাখ টাকা। গত বছরের একই সময়ে (অক্টোবর) যা ছিল ২৫ হাজার ৫০১ কোটি ২০ লাখ টাকা। সে হিসাবে গত বছরের তুলনায় চলতি বছরের অক্টোবর মাসে ব্যাংক কার্ডে লেনদেন বেড়েছে ৪৯ দশমিক ৫৪ শতাংশ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, নগদ ডলার সংকট থাকায় কার্ডে ডলার লেনদেনে ঝুঁকছেন গ্রাহক। তাছাড়া নগদ ডলারের দাম বেশি, কার্ডে তুলনামূলক কম দর। এসব কারণে কার্ডের মাধ্যমে বিদেশি মুদ্রায় লেনদেন বাড়ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরের অক্টোবর মাস পর্যন্ত ব্যাংকগুলোর ইস্যু করা মোট কার্ডের সংখ্যা বেড়ে ৩ কোটি ৪৪ লাখ ২২ হাজার ৭৯৮টিতে দাঁড়িয়েছে। দেশে লেনদেনের সিংহভাগই হয় ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে। এসব কার্ডের মধ্যে ডেবিট কার্ড ২ কোটি ৯১ লাখ ৫৫ হাজার ৭৫৮টি। এছাড়াও ক্রেডিট কার্ড ২০ লাখ ৬৮ হাজার ৫৯৭টি এবং প্রিপেইড কার্ড রয়েছে ৩১ লাখ ৯৮ হাজার ৪৪৩টি।

চলতি বছরের অক্টোবর মাসে ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে মোট ৩৫ হাজার ২৫৩ কোটি ৬০ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। এ সময়ে ক্রেডিট কার্ডে দুই হাজার ৪৫৮ কোটি ২০ লাখ টাকা এবং প্রি-পেইড কার্ডের মাধ্যমে লেনদেন হয়েছে ৩০৪ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

আলোচিত মাসে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে লেনদেন হয়েছে ৯৩ হাজার ১৩ কোটি ৪০ লাখ টাকা। যা গত ২০২১ সালের একই সময়ে ছিল ৭৬ হাজার ৭২৫ কোটি ৩০ লাখ টাকা। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে লেনদেন বেড়েছে ১৬ হাজার ২৮৮ কোটি ১০ লাখ টাকা। শতকরা হিসাবে যা ২১ দশমিক ২২ শতাংশ।

বিকাশ, নগদ, রকেট, এমক্যাশ, উপায়সহ ১৩টি প্রতিষ্ঠান মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে আর্থিক সেবা দিচ্ছে। অক্টোবর শেষে এ খাতে নিবন্ধিত গ্রাহকসংখ্যা বেড়ে ১৮ কোটি ৭৫ লাখ ২৩ হাজার ৫৯৩ জনে দাঁড়ায়। এর মধ্যে পুরুষ গ্রাহক ১০ কোটি ৮৬ লাখ ২১ হাজার ৮২৪ জন। নারী গ্রাহক সাত কোটি ৮৪ লাখ ৭৯ হাজার ৩১৬ জন। এ সময়ে মোবাইল ব্যাংকিং এজেন্টের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ২১ হাজার ৮০৩টিতে।

সূত্র: জাগোনিউজ
আইএ/ ২২ ডিসেম্বর ২০২২

Back to top button