ঢালিউড

এবার বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম সিনেমা হলগুলো খুলছে

ঢাকা, ১০ অক্টোবর-করোনার কারণে দীর্ঘ সাত মাস বন্ধ রয়েছে দেশের সিনেমা হলগুলো। মহামারির এ পর্যায়ে এসে সবকিছু খোলার সঙ্গে এবার বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম সিনেমা হলগুলো খুলে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সব ঠিক থাকলে আগামী ১৬ অক্টোবর থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দেশের সব সিনেমা হল খোলার আশ্বাস দিয়েছে তথ্য মন্ত্রণালয়।

এমন সিদ্ধান্তে স্বস্তি ফিরেছে সিনেমা হল মালিক ও চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের মাঝে। হল খোলার বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত এলেও দর্শক খরার আশঙ্কায় এখনই নতুন সিনেমা মুক্তি দিতে চান না প্রযোজকরা। নতুন সিনেমা না পেলে হল খুলতে নারাজ বেশির ভাগ হল মালিকও।

তাদের মতে, করোনায় দীর্ঘদিন ধরে হলগুলো বন্ধ রয়েছে। এ অবস্থা নতুন সিনেমা না পেলে দর্শকদের হলে ফিরিয়ে আনা কঠিন হবে। তবে প্রযোজকরা বলছেন, এ পরিস্থিতিতে বড় বাজেটের সিনেমা মুক্তি দিয়ে লোকসানে পড়তে চান না তারা। তাই হল খুললেও প্রযোজকরা খুব বেশি আশাবাদী নন।

জানা গেছে, সেন্সর সনদ পাওয়া প্রায় ২২টি নতুন সিনেমা রয়েছে মুক্তির অপেক্ষায়। তবে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের পরও হল খোলার তোড়জোড় চোখে পড়ছে না বেশির ভাগ হল মালিকদের মধ্যে, একই সঙ্গে প্রযোজনা সংস্থাগুলোর তৎপরতাও নেই বললেই চলে।

এ বিষয়ে প্রদর্শক সমিতির সহসভাপতি মিয়া আলাউদ্দিন বলেন, ‘তথ্য মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ১৬ তারিখ আমরা হল খুলছি। তবে খোলার পর যদি প্রযোজকরা নতুন সিনেমা রিলিজ না করেন, তাহলে হল বন্ধ করে দেব। কিন্তু তা এখনই বলা যাচ্ছে না! আগে বন্ধ থাকা হলগুলো সচল হোক।’

আর নতুন সিনেমা না পেলে নিজের হল খুলবে না বলে জানিয়েছেন প্রদর্শক সমিতির সাবেক সভাপতি ও মধুমিতা হলেন কর্ণধার ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ। তিনি বলেন, ‘নতুন সিনেমা না এলে আমি হল খুলব না। ভালো সিনেমা না হলে আমাদের সেল কম হয়। প্রতিদিন ৫-১০ হাজারের বেশি হয় না। করোনার কারণে ৭ মাস বন্ধ থাকার পর এখন ভালো সিনেমা না হলে দর্শক আসবে না।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা যদি লন্ডনের দিকে তাকাই তারা সপ্তাহে দুদিন সিনেমা হল খোলা রেখেছে। আর আমেরিকায় খোলার পর আবার বন্ধও করে দিয়েছে। আমি বলব, আমাদের সিনেমা দরকার। এখন হল খুললেই স্বাস্থ্যবিধি মানাসহ আমাদের অতিরিক্ত ব্যয় বহন করতে হবে। এই অবস্থায় নতুন সিনেমা রিলিজ না হলে আমি মধুমিতা হল বন্ধ রাখব।’

এ বিষয়ে প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু বলেন, ‘সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশনা রয়েছে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মোট আসনের ৫০ শতাংশ দর্শক নিয়ে হল চালু করার। আমাদের অসাবধানতার কারণে যেন করোনা পরিস্থিতি আরো না বাড়ে; সেদিকেও খেয়াল রাখতে বলা হয়েছে। আমার বক্তব্য হচ্ছে, ৫০ শতাংশ দর্শক নিয়ে সিনেমা চালালে হল মালিকদের খরচ উঠবে কি না? প্রযোজক তার যথাযথ মূল্য পাবেন কি না? এমন পরিস্থিতিতে প্রযোজক সিনেমা মুক্তি দেবেন কি না, এটা তাদের ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত। কারণ দুই কোটি টাকা দিয়ে বানানো একটি সিনেমা আয়ের নিশ্চয়তা না পেলে কেন রিলিজ করবেন প্রযোজক। এ বিষয়টি নিয়ে আমরা প্রযোজক সমিতির পক্ষ থেকে প্রদর্শক সমিতিকে দুই দফা চিঠিও পাঠিয়েছি। কিন্তু তারা কোনো উত্তর দেননি। আমাদের লক্ষ্য ছিল প্রদর্শক-প্রযোজক মিলে আলোচনার মাধ্যমে সরকারের কাছে একটি জোরালো আবেদন করা।’

তিনি আরো বলেন, ‘যদি পুরোনো সিনেমা চালানো হয়, সেটা হবে একটা আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত। দর্শকদের মধ্যে এমনিতেই করোনার ভয়, তার ওপর পুরোনো সিনেমা প্রদর্শন করলে মানুষকে হলে টানা যাবে না। এর ফলে হল খোলার শুরুর দিকেই একটা নৈতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। তাই বিষয়টি নিয়ে আমরা প্রদর্শক সমিতির সঙ্গে বসতে চেয়েছিলাম। কিন্তু তাদের পক্ষ থেকে এখনো সাড়া পাইনি।’

আরও পড়ুন: সোনালি অতীত থাকলেও বিবর্ণ এফডিসি

অন্যদিকে প্রদর্শক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জ্বল বলেন, ‘স্বাস্থ্যবিধি মেনে সিনেমা হল খোলার বিষয়ে আমরা কাল রোববার সব সিনেমা হল মালিক বরাবর একটি চিঠি পাঠাব। তবে এ বিষয়ে আমরা চলচ্চিত্রের সংগঠন ও সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতা চাই।’

এদিকে পুরোনো সিনেমা দিয়ে হলেও হল চালু করতে চায় স্টার সিনেপ্লেক্স। প্রতিষ্ঠানটির মিডিয়া ম্যানেজার মেসবাহ উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, ‘এখনো প্রদর্শক সমিতি থেকে কোনো ধরনের চিঠি পাইনি। তবে ১৬ তারিখ সিনেপ্লেক্স খোলার সব ধরনের প্রস্তুতি আমাদের রয়েছে।’

এ কর্মকর্তা আরো বলেন, ‘পুরোনো সিনেমা দিয়ে হলেও হল চালু করাই আমাদের মূল লক্ষ্য। আমরা আশা রাখি, হল খুললে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দর্শক সিনেমা দেখতে আসবে।’

তবে দর্শকরা বলছেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে সিনেমা দেখায় বাধা নেই অনেকের। কিন্তু পরিবারসহ সিনেমা দেখার পরিবেশ তৈরি করতে হবে সিনেমা হলগুলোকে। ঢাকা কলেজের ছাত্র শাহরিয়ার নিয়মিত হলে গিয়ে সিনেমা দেখেন। করোনা পরিস্থিতিতে সিনেমা হল খুললে যাবেন?Ñ এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘অবশ্যই। নিয়মিত ছবি দেখি কিন্তু করোনার কারণে ৬ মাস হলে যাই না। সবকিছুই খোলা, সিনেমা হল কেন নয়? তবে কর্তৃপক্ষকে সবার মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করতে হবে। সঙ্গে হাত স্যানিটাইজ করে হলে প্রবেশ করার ওপর নজর দিতে হবে। পাশাপাশি হলে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে হবে।’

আবার অনেক দর্শকের মতে, সিনেমা হল খুললেও কি সিনেমা মুক্তি পাচ্ছে, তার ওপর নির্ভর করেই হলে যাওয়ার বিষয় আসবে। তবে বেশির ভাগ দর্শক এখনই হলে যেতে রাজি নন। অনেকের মতে, করোনার এ পরিস্থিতিতে এখনই হলে গিয়ে সিনেমা দেখার মতো পরিবেশ হয়নি। পরিস্থিতি আরো ভালো হলেই কেবল সিনেমা দেখতে যাওয়ার বিষয়টি সামনে আসবে।

প্রযোজক পরিবেশক সমিতির তথ্য অনুযায়ী, প্রায় ২২টি সিনেমা সেন্সর সনদ নিয়ে বর্তমানে মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে জাজ মাল্টিমিডিয়ার প্রযোজিত ‘জিন’। নাদের চৌধুরী পরিচালিত এ সিনেমায় অভিনয় করেছেন সজল, রোশান, পূজা চেরী। তবে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটির সিইও আলিমুল্লাহ খোকন বলেন, ‘এ অবস্থায় সিনেমা হলে দর্শক আসবে কি না, সন্দেহ আছে। জাজের পক্ষ থেকে সিনেমা মুক্তি দেওয়ার কোনো সিদ্ধান্ত এখনো নেওয়া হয়নি। পরিস্থিতি পুরোপুরি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত আমরা সিনেমা মুক্তির পক্ষে নই।’

শাকিব খান অভিনীত সিনেমা ‘বিদ্রোহী’-এর পরিচালক শাহীন সুমন। শাপলা মিডিয়ার ব্যানারে নির্মিত এ সিনেমা গেল রোজার ঈদে মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল। হল খুললে সিনেমাটি মুক্তি পাবে কি নাÑ জানতে চাইলে প্রযোজক সেলিম খান বলেন, হল খুললেও এত বড় বাজেটের সিনেমা মুক্তি দেব না।

রায়হান রাফী পরিচালিত সিনেমা ‘পরান’। যেখানে অভিনয় করেছেন বিদ্যা সিনহা মিম, শরিফুল রাজ এবং ইয়াশ রোহান। লাইভ টেকনোলজিসের প্রযোজনায় এ সিনেমা পহেলা বৈশাখে মুক্তির কথা থাকলেও করোনার কারণে সম্ভব হয়নি। প্রযোজক তামজিদ অতুল বলেন, করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় এনে হল চালুর কমপক্ষে এক মাস পর মুক্তি দিতে চাই। এরমধ্যে প্রচারণা চলবে।

আর দেবাশিষ বিশ্বাস পরিচালিত ও বাপ্পি-অপু অভিনীত শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ ২ সিনেমাটি এখনই মুক্তি দিতে চায় না প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আরটিভি। প্রতিষ্ঠানটির অনুষ্ঠান প্রধান দেওয়ান শামসুর রাকিব বলেন, ‘হল খোলার পর সিনেমাটি মুক্তির সিদ্ধান্ত নেব। কারণ, আমরা দেখব এই পরিস্থিতির মধ্যে দর্শক কতটা হলমুখী হন।’ তারকাবহুল ‘মিশন এক্সট্রিম’ সিনেমার পরিচালক বলেন, ‘আগে অবজার্ভ করতে চাই, এ পরিস্থিতিতে দর্শক হলে গিয়ে সিনেমা দেখছে কি না। দর্শকের উপস্থিতির ওপর নির্ভর করে সিনেমাটি কবে মুক্তি দেওয়া যায়। তবে মুক্তির আগে প্রচারণার জন্য কমপক্ষে এক মাস সময় নেব।’

তবে সনি সিনেমা হলের মালিক হোসাইন মনে করেন, সিনেমা হল চালু হলে নতুন সিনেমা মুক্তি নিয়ে তৈরি হওয়া সংকটগুলো কেটে যেতে পারে।

এন এইচ, ১০ অক্টোবর

Back to top button