জাতীয়

নারী জাগরণের পথিকৃৎ রোকেয়া দিবস আজ

ঢাকা, ০৯ ডিসেম্বর – আজ বেগম রোকেয়া দিবস। নারী জাগরণের পথিকৃৎ বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের অবদানকে স্মরণ করে তার জন্ম ও মৃত্যুদিন ৯ ডিসেম্বর রোকেয়া দিবস হিসেবে পালন করা হয়। ১৮৮০ সালের এই দিনে রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার পায়রাবন্দের এক নিভৃত পল্লীতে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। এই মহীয়সী নারী ১৯৩২ সালের ৯ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন।

এ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছেন। নারী জাগরণের অগ্রদূতের জন্ম ও প্রয়াণ দিবসে নারী মুক্তির আন্দোলন বেগবান করার দৃপ্ত শপথে সারাদেশে যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালনে গ্রহণ করা হয়েছে বিভিন্ন কর্মসূচি। প্রকাশ করা হয়েছে বিশেষ ক্রোড়পত্র, পোস্টার, বুকলেট।

আজ শুক্রবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে রোকেয়া দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবার কার্যক্রমের অংশ হিসেবে সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখায় দেশের পাঁচজন নারী পাচ্ছেন ‘রোকেয়া পদক’।

নারী জাগরণের পথিকৃৎ রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের কর্ম ও আদর্শকে সামনে রেখে সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীদের অনন্য অর্জনের জন্য প্রতি বছর ৯ ডিসেম্বর রোকেয়া পদক প্রদান করা হয়। পদকপ্রাপ্তরা প্রধান অতিথির কাছ থেকে সম্মাননা পদক গ্রহণ করবেন। এ সময় মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা উপস্থিত থাকবেন।

এদিকে দিবসটি উপলক্ষে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের অন্যান্য জেলার মতো রংপুরের মিঠাপুকুরের পায়রাবন্দে রোকেয়ার জন্মস্থানে রয়েছে নানান আয়োজন। রোকেয়া দিবস উপলক্ষে শুক্রবার সকাল ১০টায় রংপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পায়রাবন্দে রোকেয়ার স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হবে। সাড়ে ১০টায় প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শনী রয়েছে। বাদ জুম্মা রোকেয়া স্মৃতিকেন্দ্র সংলগ্ন মসজিদে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন রয়েছে।

এছাড়া পায়রাবন্দে বেলা ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত স্বেচ্ছায় রক্তদান ও রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করা হবে। বিকেল সাড়ে ৩টায় বিতর্ক প্রতিযোগিতার প্রথম পর্ব অনুষ্ঠিত হবে। বিকেল ৪টায় আলোচনা সভা এবং সন্ধ্যায় রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। ওই দিন থেকে পায়রাবন্দে ৩ দিন ব্যাপী মেলা শুরু হবে।

অন্যদিকে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে দিবসটি উপলক্ষে সকাল সোয়া ৯টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল ও রোকেয়ার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হবে। সাড়ে ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটেরিয়া চত্বর থেকে শোভাযাত্রা বের করা হবে। সকাল ১০টায় শেখ রাসেল চত্বরে আলোচনা সভা ও প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন করা হবে।

প্রসঙ্গত, রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন ১৮৮০ সালের ৯ ডিসেম্বর রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার পায়রাবন্দ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। সে সময় মুসলিম সমাজে মেয়েদের লেখাপড়া শেখানোর কোনো প্রচলন ছিল না। তাই প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা না থাকলেও পরিবারের সবার অগোচরে বড় ভাইয়ের কাছে উর্দু, বাংলা, আরবি ও ফারসি পড়া ও লেখা শেখেন।

বেগম রোকেয়ার শিক্ষা লাভ ও মূল্যবোধ গঠনে তার ভাই ও বড় বোন উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছিলেন। পরবর্তীতে বিহারের ভাগলপুরে সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেনের সঙ্গে বিয়ে হয়। স্বামীর উৎসাহে ও নিজের আগ্রহে তিনি লেখাপড়ার প্রসার ঘটান। বেগম রোকেয়া ১৯৩২ সালের ৯ ডিসেম্বর মারা যান।

রোকেয়া সাখাওয়াত ২০০৪ সালে বিবিসি বাংলার সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জরিপে ষষ্ঠ নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি প্রাবন্ধিক, ঔপন্যাসিক, সাহিত্যিক ও সমাজ সংস্কারক হিসেবে পরিচিত। তার উল্লেখযোগ্য রচনা হলো-মতিচূর, সুলতানার স্বপ্ন, পদ্মরাগ, অবরোধবাসিনী।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
আইএ/ ০৯ ডিসেম্বর ২০২২

Back to top button