জাতীয়

তারেককে দেশে এনে সাজা বাস্তবায়ন করা হবে

ঢাকা, ০৮ ডিসেম্বর – আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। সেই সঙ্গে সাজাপ্রাপ্ত আসামি তারেক জিয়াকে যুক্তরাজ্য থেকে ফিরিয়ে এনে সাজা কার্যকর করা হবে বলেও জানান তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, কেউ যাতে আগুন সন্ত্রাস করতে না পারে, সে জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। একজন মানুষের ক্ষতিও যেন কেউ করতে না পারে। আগুন দিয়ে পোড়াতে এলে যে হাত দিয়ে আগুন দেবে, ওই হাতটা ওই আগুনে পুড়িয়ে দিতে হবে। আর বসে থাকার সময় নেই। কোনো ক্ষমা নেই।

বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) আওয়ামী লীগের যৌথসভায় গণভবন থেকে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়।

তিনি বলেন, তারেক জিয়া মুচলেকা দিয়ে গিয়েছিল, সাজাপ্রাপ্ত আসামি। আমি ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করব, তারেক জিয়াকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনব। ব্রিটিশ সরকারকে বলব তারেক জিয়া সাজাপ্রাপ্ত আসামি। তাকে হ্যান্ডওভার করতে হবে বাংলাদেশের কাছে। দেশে নিয়ে এসে সাজা বাস্তবায়ন করব।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যেসব দেশ আমাদের দেশের গণতন্ত্রের কথা বলে, তাদের দেশের অবস্থাতো আমরা জানি। প্রতিদিন মানুষ খুন হয়, ভোটের সময় ভোট চুরি হয়েছে বলে তাদের ক্যাপিটলেও আক্রমণ হয়। পাঁচ-ছয় জন গুলি করে মারে, আর তাদের কাছ থেকে আমার গণতন্ত্রের ছবক নিতে হবে। আমরা বাংলাদেশ, বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকবে।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমাকে যখন আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হল, আমি তখনই দেশে চলে আসছি। ওর বাপও (জিয়াউর রহমান) তো আমাকে ঠেকাতে পারেনি। আবার যখন তত্ত্বাবধায়ক সরকার, তখনও পারেনি। এতই নেতৃত্ব দেয়ার শখ, দেশের বাইরে পালিয়ে থেকে কেন। ডিজিটাল বাংলাদেশ করে দিয়েছি, সেই সুযোগে ডিজিটালি কথা বলে।

একসময় বিএনপি নেতাকর্মীদের হাতে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের নির্যাতনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এরা (বিএনপি) কীভাবে অত্যাচার করেছে, সেটা তুলে ধরতে হবে। বিএনপির অপকর্ম তুলে ধরতে হবে। আমাদের যে নেতাকর্মীরা বিএনপির হাতে ছেঁচা-মার খেয়েছে, তাদের বসে থাকলে তো চলবে না।

এসময় তিনি আরও বলেন, অগ্নি সন্ত্রাসীদের, স্বাধীনতাবিরোধীদের আর ক্ষমতায় আসতে দেয়া যাবে না, এটা স্পষ্ট কথা। ওরা আমাদের উৎখাত করবে? ওরা পকেট থেকে এসেছে আবার পকেটেই থাকবে। গণতন্ত্রের কথা ওদের মুখে মানায় না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে, সে বিএনপির ব্যবসায়ীই হোক বা আওয়ামী লীগের ব্যবসায়ী হোক, সবাই কিন্তু শান্তিতে ব্যবসা করেছে। হাওয়া ভবনও আমরা খুলি নাই, খাওয়া ভবনও আমরা খুলি নাই বরং ব্যবসা করার সুযোগ করে দিয়েছি। আবারও হাওয়া ভবন আসলে, আরেকটা নাম দিবে। আবারও চুষে চুষে খাবে। শান্তিতে ব্যবসা করতে হবে না।

সংবাদকর্মীদের সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপিকে যারা তেল মারছে, আমরা তাদেরও হিসাব করব। আওয়ামী লীগের সময় আরাম-আয়েশ করে ব্যবসা করে খাচ্ছে তো, কারও ব্যবসায় আমরা বাধা দিইনি। সবাইকে আমরা শান্তিপূর্ণভাবে ব্যবসা করতে দিয়েছি। বিএনপির আমলে তো এত আরামে ব্যবসা করতে পারেনি। এই মিডিয়া একটা উল্টা পাল্টা লিখলেই তো মারত। তারপরেও এত আহ্লাদ কিসের? এত তেল মারা কিসের?

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
আইএ/ ০৮ ডিসেম্বর ২০২২

Back to top button