ক্রিকেট

সাকিবের ঘূর্ণিতে ১৮৬ রানে গুটিয়ে গেলো ভারত

ঢাকা, ০৪ ডিসেম্বর – বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ প্রথম ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে সব কয়টি উইকেট হারিয়ে ১৮৬ রান সংগ্রহ করে রোহিত বাহিনী।

রোববার মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতে বাংলাদেশের সামনে ১৮৭ রানের লক্ষ্য দিয়েছে ভারত। টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে অলআউট হয়ে এই লক্ষ্য দেয় তারা।

ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে এসে প্রথম সাফল্য পায় বাংলাদেশ। তখন ডট বলের চাপে ভালোভাবেই পড়েছিল ভারতের ওপর। সেটা থেকে বের হতে মিরাজের বলে রিভার্স সুইপ করতে যান ধাওয়ান। পায়ে বল লেগে সেটি পৌঁছে যায় তার বুকে। এরপর আঘাত হানে স্টাম্পে। প্রথম উইকেটের দেখা পায় বাংলাদেশ।

পাওয়ার প্লের ১০ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ৪৮ রান করে ভারত। ঠিক এর পরের ওভারেই সাকিবকে বোলিংয়ে নিয়ে আসেন অধিনায়ক লিটন। দ্বিতীয় বলেই রোহিতের ব্যাট ও প্যাডের মাঝ দিয়ে তাকে বোল্ড করেন তিনি। ৩১ বলে ২৭ রান করে আউট হন ভারতীয় অধিনায়ক।

এক বল পর আরও এক উইকেটের দেখা পায় বাংলাদেশ। এবার অসাধারণ এক ক্যাচ ধরেন লিটন দাস। সাকিবের বলে ড্রাইভ করতে চেয়েছিলেন কোহলি। হালকা হাওয়ায় ভাসা বল অনেকটা গোলরক্ষকের মতো ঝাপিয়ে এক হাতে ধরেন এক্সট্রা কাভার অঞ্চলে দাঁড়িয়ে থাকা লিটন। ১৫ বলে ১ চারে ৯ রান করে ফিরতে হয় কোহলিকে।

এরপর শ্রেয়াস আয়ারের সঙ্গে ৪৩ রানের জুটি গড়ে তোলেন লোকেশ রাহুল। এবার আঘাত হানেন এবাদত হোসেন। ২ চারে ৩৯ বলে ২৪ রান করা আয়ারকে ফিরিয়ে ভেঙে দেন জুটি। উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন ভারতীয় ব্যাটার।

সাকিবের তিন নম্বর উইকেট ছিলেন ওয়াশিংটন সুন্দর। নিজের দ্বিতীয় স্পেলে ফিরেই তিনি আউট করেন বাউন্ডারি নিয়ে ভুগতে থাকা এই ব্যাটারকে। রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে পয়েন্টে দাঁড়িয়ে থাকা এবাদত হোসেনের হাতে ক্যাচ দেন কোনো বাউন্ডারি না হাঁকিয়ে ৪৩ বলে ১৯ রান করা সুন্দর।

এরপর আবারও এক ওভারে দুই উইকেট পান সাকিব। ৩৫তম ওভারে এসে শুরুতে শার্দুল ঠাকুরকে বোল্ড করেন তিনি। এরপর দ্বীপক চাহারকে ফেলেন এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের চতুর্থ ফাইফার পূর্ণ হয় সাকিবের।

একপ্রান্ত আগলে লম্বা সময় ক্রিজে ছিলেন লোকেশ রাহুল। নবম ব্যাটার হিসেবে এবাদত হোসেনের বলে আউট হন তিনি। ৫ চার ও ৪ ছক্কায় দলের পক্ষে ৭০ বলে সর্বোচ্চ ৭৩ রান আসে তার ব্যাট থেকে।

বাংলাদেশের পক্ষে ১০ ওভারে ২ মেডেনসহ ৩৬ রান দিয়ে পাঁচ উইকেট নেন সাকিব। ৮ ওভার দুই বল হাত ঘুরিয়ে ৪৭ রান দিয়ে চার উইকেট পেয়েছেন এবাদতও। বাকি উইকেটটি মেহেদী হাসান মিরাজের।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/০৪ ডিসেম্বর ২০২২

Back to top button