সিলেট

সিলেট-শিলচর উৎসব : আসামের সঙ্গে সম্পর্কের নতুন দুয়ার

সিলেট, ০২ ডিসেম্বর – শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) থেকে ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামের শিলচর শহরে শুরু হচ্ছে তিন দিনব্যাপী ‘সিলেট-শিলচর উৎসব’। এ উৎসবের মধ্য দিয়ে সঙ্গে সিলেটসহ সারা দেশের সম্পর্কের নতুন দুয়ার খুলতে যাচ্ছে। এরফলে বাংলাদেশ ও ভারত উভয়ই লাভবান হবে।

উৎসবটি ২ ডিসেম্বর বিকেলে শিলচর শহরের পুলিশ প্লে গ্রাউন্ডে শুরু হয়ে শেষ হবে ৪ ডিসেম্বর বিকেলে। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের নেতৃত্বে ছয় জন মন্ত্রী, বার জন এমপি, শিক্ষাবিদেরা, শিল্পদ্যোগীরা যাচ্ছেন শিলচরে। আশা করা হচ্ছে, এই উৎসবে সৃষ্টি হবে সৌহার্দের এক নতুন দিগন্ত।

অপরদিকে, ভারতের তরফ থেকে দিল্লির কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিনিধিসহ আসাম, মনিপুর ও মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রীরা থাকবেন এই উৎসবে।

আসামের সঙ্গে ঢাকার সম্পর্কের যে নতুন দুয়ার খুলছে এটি তার প্রথম পদক্ষেপ বলেও জানান সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে, ভারত সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সহায়তায় নয়াদিল্লির ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশন ও বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন ফর রিজিওনাল স্টাডিজ আয়োজিত তিনদিনের উৎসবে অংশগ্রহণ করতে সিলেট থেকে ইতোমধ্যে বিশিষ্টজনরা ভারতে গিয়ে পৌঁছেছেন। সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র সমন্বয়ে ‘সিলেট-শিলচর উৎসব’-এ অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণপত্র পেয়েছেন এ অঞ্চলের জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ব্যক্তি ও সাংবাদিকসহ বিশিষ্টজনরা। আমন্ত্রণ পাওয়া ব্যক্তিরা শুক্রবার সকালের মধ্যেই শিলচরে গিয়ে পৌঁছবেন বলে জানা গেছে।

আসামের শিলচর শহরের সঙ্গে সিলেট শহরের সড়ক সীমান্ত মাধ্যমে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ। ভারতের স্বাধীনতার ৭৫ ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপনে আয়োজন করা হচ্ছে এই মৈত্রী উৎসব। একদিকে যেমন দুই অঞ্চলের আদিবাসী সংস্কৃতি তুলে ধরা হবে, অন্যদিকে তেমন আলোচনায় অংশ নেবেন দুই দেশের বিশিষ্টজনরা। স্বাস্থ্য, শিক্ষা, পর্যটন ও ডিজিটাল পরিকাঠামো ক্ষেত্রে বাণিজ্যিক সম্ভাবনার দিক খতিয়ে দেখা হবে।

এ বিষয়ে সিলেট সিলেট চেম্বার সূত্র জানায়, আসামের শিলচরের সাংসদ ডা. রাজদীপ রায়ের উদ্যোগেই এ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। এই উৎসবের ফলে ভারতের উত্তরপূর্বাঞ্চলের সঙ্গে সিলেটসহ আমাদের রাজধানীর সংযোগ আরো বাড়বে। গতি আসবে ব্যবসা ও বিনিয়োগে।

জানা যায়, সিলেট-শিলচর উৎসবে অন্তত সেখানকার তিনজন মুখ্যমন্ত্রী বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ কয়েকজন মন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের পাশাপাশি সম্পর্কের নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। উত্তরপূর্বাঞ্চলের সাত রাজ্যের মধ্যে রয়েছে, আসাম, মেঘালয়, মনিপুর, ত্রিপুরা, মিজোরাম, নাগাল্যাণ্ড ও অরুণাচল প্রদেশ।

এরমধ্যে আসাম, মেঘালয়ের সঙ্গে বৃহত্তর সিলেট বিভাগের বড় সীমান্ত রয়েছে। ১৯৪৭ সালের আগে আসাম-সিলেট একসঙ্গেই ছিল। দেশভাগের পরে শহরদুটি আলাদা হয়ে যায়। বর্তমানে ঢাকা ও দিল্লি সরকার চাইছে, এই শহর দুটির মধ্যে নতুন করে সংযোগ বাড়ানোসহ ব্যবসা ও বিনিয়োগের নতুন ক্ষেত্র তৈরি করতে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ভাষা আন্দোলনের পথিকৃৎ শিলচরে আগামী ২, ৩ ও ৪ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে শিলচর-সিলেট ফেস্টিভ্যাল। ভারত সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সহায়তায় নয়াদিল্লির ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশন ও বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন ফর রিজিওনাল স্টাডিজ আয়োজিত তিনদিনের উৎসবে আসাম সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকছে। সহযোগিতায় রয়েছে ফ্রেন্ডস অফ বাংলাদেশ।

সূত্র: সিলেটভিউ২৪
আইএ/ ০২ ডিসেম্বর ২০২২

Back to top button